বাংলা, বাঙালি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একবৃন্তে তিনটি চেতনার ফুল: নরসিংদী জেলা প্রশাসক | daily-sun.com

বাংলা, বাঙালি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একবৃন্তে তিনটি চেতনার ফুল: নরসিংদী জেলা প্রশাসক

ডেইলি সান অনলাইন     ১৭ মার্চ, ২০১৮ ২২:৪৬ টাprinter

বাংলা, বাঙালি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একবৃন্তে তিনটি চেতনার ফুল: নরসিংদী জেলা প্রশাসক

র‌্যালিতে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন

নরসিংদী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত হয়েছে আজ শনিবার।

 

১৯২০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু জন্মগ্রহণ করেন।

সারা দেশের ন্যায় নরসিংদীতেও যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি উদযাপন করেছে জেলা প্রশাসন।

 

কর্মসূচীর মধ্যে ছিল, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা, কেক কাটা, শিশু কিশোরদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ইত্যাদি।

 

র‌্যালিতে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন-এর নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন, পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন, স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) ড. এটিএম মাহবুবুল করিম, জেলা সিভিল সার্জন ডা. সুলতানা রাজিয়া প্রমুখ।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, বাংলা, বাঙালি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একবৃন্তে তিনটি চেতনার ফুল। বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের মাঝে তিনি চির অম্লান চিরঞ্জীব।

 

তিনি বলেন, বাংলার শোষিত-বঞ্চিত-নির্যাতিত-মেহনতি জনতার হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু চিরভাস্বর। তিনি রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতা দিয়ে কর্মী থেকে নেতা, নেতা থেকে জননেতা, একটি দলের নেতা থেকে হয়েছেন দেশনায়ক।

 

সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন আরও বলেন, সাধারণের মধ্য থেকে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক নেতৃত্বের উদ্ভব। তিনি শাশ্বত গ্রামীণ সমাজের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না ছেলেবেলা থেকে গভীরভাবে প্রত্যক্ষ করেছেন। গরিব ও অসহায় মানুষের পাশে সবসময় দাঁড়াতেন শেখ মুজিব। বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়ার, সে সোনার বাংলা নতুন প্রজন্মই গড়বে। শিশুদের সঠিকভাবে গড়ে তোলার দায়িত্ব শুধু পিতা-মাতা বা পরিবারের নয়। সাবাইকে শিশুর মেধা বিকাশে এগিয়ে আসতে হবে। আগামী দিনের সুনাগরিক শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ এবং সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নরসিংদীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আব্দুল আউয়াল।

 

এছাড়াও জাতির পিতা ও তার পরিবারবর্গের সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা সুবিধাজনক সময়ে জেলার সকল মসজিদ মন্দির ও বিভিন্ন উপসনালয়ে করা হয়েছে। পৃথক ভাবে দিবসটি নরসিংদীর মনোহরদী, বেলাব, শিবপুর, রায়পুরা, পলাশ উপজেলা প্রশাসন যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করেছে।


Top