এবার ম্যাকমাস্টারকে বরখাস্ত করতে চাচ্ছেন ট্রাম্প | daily-sun.com

এবার ম্যাকমাস্টারকে বরখাস্ত করতে চাচ্ছেন ট্রাম্প

ডেইলি সান অনলাইন     ১৬ মার্চ, ২০১৮ ১৩:৩০ টাprinter

এবার ম্যাকমাস্টারকে বরখাস্ত করতে চাচ্ছেন ট্রাম্প

 

এবার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচ আর ম্যাকমাস্টারকে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার দেশটির প্রভাবশালী গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে।

তবে ট্রাম্প এই মুহূর্তেই ম্যাকমাস্টারকে সরিয়ে দেবেন না বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। 


বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত এমন পাঁচ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বেশ কিছু পদে সম্ভাব্য রদ-বদলের চিন্তা-ভাবনা করছেন। এর মধ্যে জাতিসংঘে সাবেক মার্কিন দূত জন বল্টন এবং জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের প্রধান কেইথ কেলোগের নামও রয়েছে।


রয়টার্স বলছে, বিষয়টি সম্পর্কে তাদের পক্ষ থেকে হোয়াইট হাউজের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাৎক্ষণিক কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।


প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাম্প খুব তাড়াতাড়ি ম্যাকমাস্টারকে বরখাস্ত না করে তাকে সময় দিতে চান, যাতে তিনি (ম্যাকমাস্টার) অপমানবোধ না করেন এবং তার স্থলে একজন দক্ষ লোককে বসানো যায়।


ওয়াশিংটন পোস্ট বলেছে, ম্যাকমাস্টারের সঙ্গে ট্রাম্পের ব্যক্তিগত কোনো মাখামাখি নেই। তাছাড়া সম্প্রতি ট্রাম্প হোয়াইট হাউজের প্রধান জন কেলিকে বলেছেন, তিনি চান কেউ ম্যাকমাস্টারের স্থলাভিষিক্ত হোক।


প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ম্যাকমাস্টারের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের অভিযোগ হলো, তিনি খুব লম্বা কথা বলেন যা অনেক ক্ষেত্রেই অপ্রাসঙ্গিক মনে হয়।


প্রসঙ্গত, তিন তারকাপ্রাপ্ত আর্মি জেনারেল ম্যাকমাস্টার ট্রাম্পের দ্বিতীয় জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। এর আগে ছিলেন মাইকেল ফ্লিন। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত রাশিয়ান দূতাবাসের কর্মকর্তার সঙ্গে নিজের আলোচনা নিয়ে ভাইস-প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে বিভ্রান্ত করার অভিযোগ এনে তাকে বরখাস্ত করা হয়।


উল্লেখ্য, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৬ সালের বিতর্কিত নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠনের পর বেশ কিছু শীর্ষ কর্মকর্তাকে সরিয়ে দিয়েছেন। আবার অনেকে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে না মেলায় পদত্যাগ করেছেন। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রী রেক্স টিলারসনকে পদচ্যুত করেছেন ট্রাম্প। 


শুরু থেকেই উত্তর কোরিয়াসহ বেশ কিছু ইস্যুতে ট্রাম্পের সঙ্গে একমত হতে পারছিলেন না টিলারসন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্প টিলারসনকে বরখাস্ত করে থাকতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে।


টিলারসনকে বরখাস্তের পর সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, ‘আসলে আমরা মন্ত্রী পরিষদ এবং আমি যা চাই তা নিয়ে খুব কাছাকাছি আসতে চাই।’


তাছাড়া শীর্ষ পর্যায়ে রদ-বদল যে এখনও শেষ হয়নি সে ব্যাপারে সম্প্রতি ইঙ্গিতও দিয়েছেন ট্রাম্প।

 


Top