‘কুমিল্লার নাশকতার মামলায় জামিন না হওয়া পর্যন্ত খালেদার কারামুক্তি সুযোগ নেই’ | daily-sun.com

‘কুমিল্লার নাশকতার মামলায় জামিন না হওয়া পর্যন্ত খালেদার কারামুক্তি সুযোগ নেই’

ডেইলি সান অনলাইন     ১৩ মার্চ, ২০১৮ ১৭:৫৮ টাprinter

‘কুমিল্লার নাশকতার মামলায় জামিন না হওয়া পর্যন্ত খালেদার কারামুক্তি সুযোগ নেই’

 

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে যাত্রীবাহী নৈশকোচে পেট্রলবোমা নিক্ষেপে ৮ যাত্রী নিহতের ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা মামলায়ও হুকুমের আসামি হিসেবে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জেলে আছেন বলে জানিয়েছেন আটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তিনি বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় জামিন পেলেও কুমিল্লার নাশকতার মামলায় জামিন না পাওয়া পর্যন্ত খালেদা জিয়া কারামুক্ত হতে পারবেন না।

  


চেম্বার আদালতে মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিতের শুনানির পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল এসব কথা বলেন।


তিনি বলেন, কুমিল্লায় গাড়ি পোড়ানো ও মানুষ হত্যার অভিযোগে যেসব মামলা হয়েছে, সেসব মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে হাজিরা পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। এর মানে হলো ওই মামলাতেও তিনি কারগারে অবরুদ্ধ আছেন।


‘তাই এই মামলাতেও তিনি জেলে আছেন বলে ধরতে হবে এবং জামিন না হওয়া পর্যন্ত তার জামিনের (জামিনে কারামুক্তি) সুযোগ নেই’ উল্লেখ করেন মাহবুবে আলম। 


তিনি বলেন, আজ শুনানিতে আদালতে আমি বলেছি, এর আগে বিচারিক আদালতে বেশ কিছু বিষয় বিবেচনায় খালেদা জিয়াকে কম সাজা প্রদান করা হয়েছে। তাই একই বিষয় বিবেচনা করে তার জামিন না দেয়ার বিষয়ে আদালতে মত দিয়েছি।


এর আগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিচারিক আদালতে সাজাপ্রাপ্ত এবং কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিত চেয়ে চেম্বার আদালতে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের ওপর শুনানি শেষে বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ‘নো অর্ডার’ দিয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন।


বুধবার (১৪ মার্চ) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে এর ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। 


এর আগে জামিন আদেশের দিন (সোমবার, ১২ মার্চ) কুমিল্লায় যাত্রীবাহী বাসে পেট্রলবোমা হামলায় ৮ যাত্রী হত্যা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানোর নির্দেশসহ ২৮ মার্চ তাকে আদালতে হাজির রাখতে নির্দেশ (পি.ডব্লিউ) দিয়েছেন কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুস্তাইন বিল্লাহ।


উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর একটি মামলা করে দুদক। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।  গত বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ এবং দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।


রায়ের পর পরই খালেদা জিয়াকে আদালতের পাশে নাজিমউদ্দিন রোডের ২২৮ বছরের পুরান ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। নির্জন এই কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে গত ৩৪দিন ধরে কারাভোগ করছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

 

আরও পড়ুন:

 

চেম্বারেও খালেদার জামিন বহাল, পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানি কাল

 

খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত চেয়ে দুদকের আবেদন

 

খালেদা জিয়ার জামিনের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার আপিল

 

যে চার গ্রাউন্ডে জামিন পেলেন খালেদা জিয়া

 

জামিন পেলেন খালেদা জিয়া

 

 


Top