পাইলট-ক্রুসহ বাংলাদেশের ২৬ জন নিহত: ইউএস-বাংলা | daily-sun.com

পাইলট-ক্রুসহ বাংলাদেশের ২৬ জন নিহত: ইউএস-বাংলা

ডেইলি সান অনলাইন     ১৩ মার্চ, ২০১৮ ১৭:৩৬ টাprinter

পাইলট-ক্রুসহ বাংলাদেশের ২৬ জন নিহত: ইউএস-বাংলা

 

নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে (টিআইএ) ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় পাইলট, ক্রুসহ বাংলাদেশি ৩৬ জনের মধ্যে ২৬ জন মারা গেছেন। বাকি ১০ জন নেপালের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) বিকেলে ইউএস-বাংলার বারিধারার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের জিএম (মার্কেটিং সাপোর্ট অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস) কামরুল ইসলাম।


তিনি বলেন, আমরা অপেক্ষায় আছি, যত দ্রুত সম্ভব সেখানকার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে মরদেহ দেশে এনে তাদের আত্মীয়-স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করার জন্য। আর সেখানে যারা চিকিৎসাধীন আছেন তাদের যাবতীয় চিকিৎসা খরচসহ অন্যান্য ব্যয়ভার বহন করছে ইউএস-বাংলা। ইউএস-বাংলা প্যাসেঞ্জারের প্রতিটি ফ্যামিলির সঙ্গে যুক্ত আছে।


কামরুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত যাত্রীদের আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে ৪৬ জনকে আমরা সকালে কাঠমান্ডু পাঠিয়েছি। তাদের সেবা দেয়ার জন্য আত্মীয়-স্বজনরা সেখানে যতদিন থাকবে তার যাবতীয় খরচ বহন করবে ইউএস-বাংলা।

 


উল্লেখ্য, সোমবার ১২টা ৫০ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি বিমান কাঠমান্ডুর উদ্দেশে রওনা হয়। এরপর বিমানটি কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত হয়। এতে চার ক্রুসহ ৭১ জন আরোহী ছিলেন।

এরমধ্যে কমপক্ষে ৪৯ জন আরোহী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ২২ জন।


এরমধ্যে বাংলাদেশের যাত্রী ছিল ৩৬ জন। তাদের মধ্য থেকে ১০ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

 

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, প্লেনটি বোম্বার্ডিয়ার ড্যাশ ৮ কিউ৪০০ মডেলের এস২-এজিইউ। বাইরে পাখাবিশিষ্ট এ ধরনের প্লেনে সর্বোচ্চ ৭৮টি আসন থাকে।

 


Top