সু চির পদত্যাগ ও আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের দাবি নোবেল বিজয়ী দুই নারীর | daily-sun.com

সু চির পদত্যাগ ও আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের দাবি নোবেল বিজয়ী দুই নারীর

ডেইলি সান অনলাইন     ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ১২:১৭ টাprinter

সু চির পদত্যাগ ও আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের দাবি নোবেল বিজয়ী দুই নারীর

 

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনীসহ বিভিন্ন বাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অবস্থা স্বচক্ষে দেখতে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন নোবেল বিজয়ী দু’নারী মাইরেড ম্যাগিও ওয়েয়ার ও তোয়াক্কল কারমান। রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কুতুপালং ও মধুরছড়া ক্যাম্প পরিদর্শনের সময় নোবেল বিজয়ী দু’নারী নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন।

তারা রোহিঙ্গাদের মুখে সেদেশে গণহত্যা ও জাতিগত নিধনের বর্ণনা শুনে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।


এ সময় নোবেল বিজয়ী ইয়েমেনের তোয়াক্কল কারমান বলেন, নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সহায়তায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও সোচ্চার হতে হবে। জাতিসংঘের উচিৎ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া।


তিনি অভিযোগ করে বলেন, অং সান সু চির নেতৃত্বে এসব হচ্ছে। এখনই তার পদত্যাগ করা উচিৎ।


অপর নোবেল বিজয়ী উত্তর আয়ারল্যান্ডের মাইরেড ম্যাগিও ওয়েয়ার বলেন, মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর বর্বর নির্যাতন চালাচ্ছে। এটি একটি গণহত্যা ও জাতিগত নিধনের মতো নৃশংস ঘটনা। শিশুরাও তাদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। এ বিষয়ে প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে।


এর আগে তারা কুতুপালং ক্যাম্প ইনচার্জ কার্যালয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এসময় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের উপ সচিব মোহাম্মদ শাহীন, রোহিঙ্গা শরণার্থী ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান সিদ্দিকী উপস্থিত ছিলেন।


এর আগে সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট অ্যালেন বেরসে, ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো, তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদ্রিম, তুরস্কের ফার্স্ট লেডি এমিনে এরদোয়ান, জর্ডানের রানী রানিয়া আল আব্দুল্লাহ, মালয়েশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী আহমদ জাহিদ হামিদি, যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন, জাতিসংঘ মহাসচিবের যৌন সহিংসতাবিষয়ক বিশেষ দূত প্রমীলা প্যাটেন, মার্কিন ডেমোক্রেটিক সিনেটর জেফ মার্কলে, রিচার্ড ডার্বিন, কংগ্রেসের প্রতিনিধি ভেটি মেকলাম, জেন সেকস্কি, ডেভিট সিচেলিন, মার্কিন রাষ্ট্রদূত মাসিয়া বার্ণিকাট, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থার বিশেষ দূত ইয়াং হি লি, ভারতে নিযুক্ত বিশ্বের ১৫টি দেশের ১৯ জন দূত, ইইউসহ জাপান, জার্মান ও সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি, রাখাইন অ্যাডভাইজারি কমিশনের প্রতিনিধি দল ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রধানরা কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করেছেন।


এদের মধ্যে গত ৬ ফেব্রুয়ারিই কক্সবাজারের উখিয়ার কুতপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট অ্যালেন বেরসে এবং গতকাল ১০ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন।


এছাড়া ১১ ফেব্রুয়ারি ১১ সদস্যবিশিষ্ট ইউরোপীয় পার্লামেন্টের একটি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।

 


Top