দুই মামলায় খালেদার ‘হাজিরা পরোয়ানা’ কারাগারে | daily-sun.com

দুই মামলায় খালেদার ‘হাজিরা পরোয়ানা’ কারাগারে

ডেইলি সান অনলাইন     ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ০৯:১২ টাprinter

দুই মামলায় খালেদার ‘হাজিরা পরোয়ানা’ কারাগারে

 

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শাহবাগ ও তেজগাঁও থানায় দায়ের করা নাশকতার দুই মামলায় জারি করা ‘হাজিরা পরোয়ানা’ কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার পর এ সংক্রান্ত নথিপত্র নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে বরে কারা অধিদফতরের ঢাকা বিভাগের ডিআইজি (প্রিজন্স) তৌহিদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।


তিনি বলেন, ২০০৭-০৮ সালে রাজধানীর শাহবাগ ও তেজগাঁও থানায় করা দুই মামলার হাজিরা পরোয়ানা সন্ধ্যার দিকে কারাগারে এসে পৌঁছেছে।


এর আগে সোমবারই খালেদা জিয়াকে কুমিল্লায় নাশকতার ঘটনায় দায়ের করা একটি মামলায় ‘শ্যোন অ্যারেস্ট’ দেখানো হয় বলে নিশ্চিত করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লা মিয়া।


খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কুমিল্লার আদালতে তিনটি মামলা ছিল। এর মধ্য দুটি মামলা হাইকোর্ট স্থগিতাদেশ দেয়। আর বাসে পেট্রোলবোমা ছুড়ে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় করা মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা বলবৎ রয়েছে। ওই মামলায়ই খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানো হয়।


প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।


দণ্ডবিধি ১০৯ ও ৪০৯ ধারায় খালেদা জিয়াসহ বাকিদের সাজা দেয়া হয়। মামলায় মোট আসামি ছয়জন। তাদের মধ্যে তিনজন পলাতক রয়েছেন। তারা হলেন- বিএনপির জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।


রায়ের পর পরই খালেদা জিয়াকে আদালতের পাশে নাজিমউদ্দিন রোডের ২২৮ বছরের পুরান ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।  সেখানে কারাগারের ভেতরে প্রধান ফটকসংলগ্ন জেল সুপারের কক্ষে রাখা হয়েছে তাকে।


২০১৬ সালের ২৯ জুন থেকে ছয় হাজার ৪০০ বন্দিকে কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়ার রাজেন্দ্রপুরের নতুন কারাগারে স্থানান্তর করে পুরান কারাগার বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কিন্তু দুই বছর চার মাস ১০ দিন পর দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে এই পরিত্যক্ত কারাগারেই দিন পার করছেন খালেদা জিয়া।

 


Top