খালেদা জিয়ার সাজার প্রতিক্রিয়া হবে ব্যাপক: মওদুদ | daily-sun.com

খালেদা জিয়ার সাজার প্রতিক্রিয়া হবে ব্যাপক: মওদুদ

ডেইলি সান অনলাইন     ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ১৫:২০ টাprinter

খালেদা জিয়ার সাজার প্রতিক্রিয়া হবে ব্যাপক: মওদুদ

 

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়ার ঘটনাকে রাজনীতির একটি টার্নিং পয়েন্ট মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, এর প্রতিক্রিয়া হবে অত্যন্ত ব্যাপক ও গভীর।

 

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের সংগঠন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মওদুদ আহমদ।


তিনি বলেন, এতদিন সরকার বলে আসছিল বিএনপি নেতারা নাকি হাজার হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি করেছে। এখন আমরা কী দেখলাম, বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মাত্র দুই কোটি টাকার মামলা দেয়া হয়েছে। অথচ সেই টাকা রাষ্ট্রের টাকা নয় এবং সেই টাকা ব্যাংকে রয়েছে। ওই টাকার সুদ বেড়ে এখন ৬ কোটি টাকা হয়েছে।


মওদুদ বলেন, দুর্নীতি নয় বিশ্বাস ভঙ্গের কারণে বেগম জিয়াকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


তিনি বলেন, তিন বারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে স্বাভাবিক কারাগারে না রেখে একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নির্জন কারাবাস দেওয়া হয়েছে। এটা মানবাধিকারের লঙ্ঘন ও সংবিধান বিরোধী।


অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে তার মর্যাদা অনুযায়ী সুযোগ-সুবিধা (ডিভিশন) দেওয়ার এবং স্বাভাবিক কারাগারে স্থানান্তরেরও দাবি জানান মওদুদ আহমদ।


এ সময় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, বাবু নিতাই রায় চৌধুরী ও অ্যাডভোকট আবেদ রেজা, কামরুল ইসলাম সজল, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, মুহাম্মদ আলী, সুলতান মাহমুদ ও জামিউল হক ফয়সাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


সংবাদ সন্মেলনে আগামী কাল রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) থেকে বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত সারাদেশে সকল আইনজীবী সমিতিতে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালনের ঘোষণাও দেয়া হয়।


উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন।


এছাড়াও একই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসনের ছেলে তারেক রহমান, সাবেক এমপি কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়।


একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা করে জরিমানা করেন আদালত।


রায়ের পর পরই খালেদা জিয়াকে আদালতের পাশে নাজিমউদ্দিন রোডের ২২৮ বছরের পুরান ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।


২০১৬ সালের ২৯ জুন থেকে ছয় হাজার ৪০০ বন্দিকে কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়ার রাজেন্দ্রপুরের নতুন কারাগারে স্থানান্তর করে পুরান কারাগার বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কিন্তু দুই বছর চার মাস ১০ দিন পর দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে এই পরিত্যক্ত কারাগারেই দিন পার করছেন খালেদা জিয়া।

 


Top