উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সুইস প্রেসিডেন্ট | daily-sun.com

উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সুইস প্রেসিডেন্ট

ডেইলি সান অনলাইন     ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ১২:৩৯ টাprinter

উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সুইস প্রেসিডেন্ট

 

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনীসহ বিভিন্ন বাহিনীর নিপীড়নের মুখে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছেছেন বাংলাদেশ সফররত সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট অ্যালেন বেরসে। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টা ৪৫ মিনিটের দিকে তিনি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছান।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে সুইস এয়ারফোর্সের বিশেষ বিমানে কক্সবাজার বিমান বন্দরে অবতরণ করেন তিনি।


গত বছরের সেপ্টেম্বর নতুন সংকটের কারণে বাংলাদেশে পালিয়ে প্রায় আট লাখ রোহিঙ্গা কক্সবাজারের কুতপালংসহ বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছেন। এ সংকট শুরুর পর থেকে রোহিঙ্গাদের সহায়তায় বাংলাদেশ সরকারের পাশে দাঁড়ায় সুইজারল্যান্ড সরকার। তাদের বর্তমান অবস্থা দেখতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এলেন বাংলাদেশে সফররত সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট অ্যালেন।


কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন জানান, অ্যালেন বেরসে কুতপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বিভিন্ন ব্লক ঘুরে দেখছেন। এখানে তিনি দুপুর ২টা পর্যন্ত থাকার কথা রয়েছে। ক্যাম্পে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলে তাদের ওপর ঘটে যাওয়া মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বর্বর নির্যাতনের কাহিনী শুনছেন। পরিদর্শন শেষে রোহিঙ্গাদের হাতে ত্রাণও তুলে দেয়ার কথা রয়েছে। 


সুইস রাষ্ট্রপ্রধান অ্যালেইন বেরসে কয়েকটি এনজিও সংস্থা কার্যক্রম পরিদর্শন করবেন। এছাড়া তিনি কুতুপালংয়ে ডি ব্লকে আইওএম পরিচালিত হাসপাতালের কার্যক্রম ও পরিদর্শন করবেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গেও কথা বলবেন বলে সুইস দূতাবাস থেকে জানানো হয়।


রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ফিরে তিনি কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল পরিদর্শন করবেন। এরপর বিকেল সোয়া ৩টার দিকে ঢাকার উদ্দেশে কক্সবাজার ত্যাগ করার কথা রয়েছে প্রেসিডেন্ট অ্যালেন বেরসের।


চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরের দ্বিতীয় দিনে সোমবার অ্যালেইন বেরসে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কার্যালয়ে এক বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশের মানবিক আচরণের ভূয়সী প্রশংসা করেন সফররত সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট। তিনি জানান, এই সংকটের সঙ্গে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নের প্রশ্ন জড়িত। মানবতা, স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নের স্বার্থে এই সংকট সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকবে সুইজারল্যান্ড। এ সময় রোহিঙ্গাদের সহায়তায় আরও ১২ মিলিয়ন সুইস ফ্রাংক (১০৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা) অনুদানের ঘোষণা দেন তিনি। রোহিঙ্গাদের সহায়তায় সুইজারল্যান্ড এর আগে ৮০ লাখ সুইস ফ্রাংক দিয়েছে জানিয়ে দেশটির রাষ্ট্রপতি বলেন, এ দফায় আমরা আরও ১২ মিলিয়ন ফ্রাংক দেব বিপদগ্রস্ত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তায়। এরপরই তিনি রোহিঙ্গাদের দেখার জন্য কক্সবাজার আসেন।


জানা যায়, কক্সবাজার থেকে ঢাকায় ফিরে সন্ধ্যায় বারিধারায় সুইজারল্যান্ড দূতাবাস আয়োজিত সুইস কমিউনিটির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন বেরসে।


বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে হোটেল সোনারগাঁওয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন সুইস প্রেসিডেন্ট। পরে ঢাকা আর্ট সামিট পরিদর্শনে যাবেন তিনি। সেদিন দুপুর ১টায় সুইস ফেডারেল কাউন্সিলের প্লেনে সুইজারল্যান্ডের উদ্দেশে তার ঢাকা ছাড়ার কথা তার।


চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে গত রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশে আসেন বেরসে। প্রথম কোনো সুইস প্রেসিডেন্ট তিনি বাংলাদেশ সফরে এলেন।

 

এর আগে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো, তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদ্রিম,তুরস্কের ফার্স্ট লেডি এমিনে এরদোয়ান, জর্ডানের রানী রানিয়া আল আব্দুল্লাহ, মালয়েশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী আহমদ জাহিদ হামিদি, জাতিসংঘ মহাসচিবের যৌন সহিংসতাবিষয়ক বিশেষ দূত প্রমীলা প্যাটেন, মার্কিন ডেমোক্রেটিক সিনেটর জেফ মার্কলে, রিচার্ড ডার্বিন, কংগ্রেসের প্রতিনিধি ভেটি মেকলাম, জেন সেকস্কি, ডেভিট সিচেলিন, মার্কিন রাষ্ট্রদূত মাসিয়া বার্ণিকাট, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থার বিশেষ দূত ইয়াং হি লি, ভারতে নিযুক্ত বিশ্বের ১৫টি দেশের ১৯ জন দূত, ইইউসহ জাপান, জার্মান ও সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি, রাখাইন অ্যাডভাইজারি কমিশনের প্রতিনিধি দল ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রধানরা কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করেছেন।

 

 


Top