অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচতে বউ বদলের রীতি প্রচলিত যে সমাজে! | daily-sun.com

অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচতে বউ বদলের রীতি প্রচলিত যে সমাজে!

ডেইলি সান অনলাইন     ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ২১:৫০ টাprinter

অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচতে বউ বদলের রীতি প্রচলিত যে সমাজে!

বিয়ে নিয়ে হোক কিংবা যৌনতা নিয়ে বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে থাকা লক্ষ লক্ষ জাতির মধ্যে রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন আচার ও বিশ্বাস। আর তাদের হাজার রকমের অদ্ভুত সব গল্প শুনলে অবাক হওয়া ছাড়া উপায় নেই।

 

১. বিবাহিত জীবন কেমন হবে, সেটা যদি কেউ বিয়ের আগেই জানতে চায় তাহলে তারা কিছুদিনের জন্য বিয়ে করতে পারে। লিখিতভাবে জানাতে হবে যে তারা ঠিক ক’দিনের জন্য বিয়েটা করছে। সেই সময় কেটে গেলে তাদের আর স্বামী-স্ত্রী হিসেবে ধরা হয় না।

 

২. উত্তর আমেরিকা ও পূর্ব সাইবেরিয়ায় এই রীতি প্রচলিত আছে। অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচতে এখানকার মানুষ বউ অন্যের সঙ্গে বদলে নেয়। সাইবেরিয়ানরা বিশ্বাস করেন, ঋতুস্রাব চলাকালীন মেয়েদের সঙ্গে মিশলে সমুদ্রে তলিয়ে যায় মানুষ।

 

৩. হিমালয়ের কোলে প্রচলিত আছে এই প্রথা। একাধিক ভাইয়ের একজনই স্ত্রী। কারণ, এই অঞ্চলে সবার হাতেই খুব কম জায়গা রয়েছে।

তাই যত সংসার হবে তত ভাগ হবে। এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতেই অনেক ভাইয়ের একজন স্ত্রী আর একটি সংসার তৈরির প্রথা রয়েছে।

 

৪. ইন্দোনেশিয়ায় বছরে সাতবার এক বিশেষ ছুটির দিন আসে যার নাম ‘পন’। যেখানে মানুষ জাভা নামে এক পবিত্র পাহাড়ের নিচে রাত কাটাতে যায় মনোবাসনা পূর্ণ করার জন্য। আর সেখানে গিয়ে তাদের স্বামী ছাড়া অন্য কারও সঙ্গে সঙ্গমে মিলিত হতে হয়। প্রত্যেকবার একই পুরুষের সঙ্গে মিলিত হলে মনোবাসনা পূর্ণ হবে না।

 

৫. পাপুয়া নিউগিনিতে রয়েছে এক অদ্ভুত নিয়ম। এখানে যে কেউ যে কোনও সময় যৌন সম্পর্কে মিলিত হতে পারে, শিশু হোক বা বৃদ্ধ। বয়স যতই কম হোক, যৌনতায় কোনও বাধা নেই। তবে একসঙ্গে খাওয়া যাবে না। অর্থাৎ, বিয়ে না হওয়া পর্যন্ত কিছুতেই একসঙ্গে ডিনারে যেতে পারবে না একটি ছেলে ও একটি মেয়ে।


Top