এসএসসি পরীক্ষার সময় বন্ধ থাকবে ফেসবুক-টুইটার: শিক্ষামন্ত্রী | daily-sun.com

এসএসসি পরীক্ষার সময় বন্ধ থাকবে ফেসবুক-টুইটার: শিক্ষামন্ত্রী

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৭:০৪ টাprinter

এসএসসি পরীক্ষার সময় বন্ধ থাকবে ফেসবুক-টুইটার: শিক্ষামন্ত্রী

 

ফেব্রুয়ারির ১ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলাকালে ফেসবুক-টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে ওই পরীক্ষা শুরুর তিনদিন আগে থেকে শুরু করে চলাকালীন সময়ে সারাদেশের কোচিং সেন্টারগুলোও বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ের নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।


তিনি বলেন, প্রত্যেক পরীক্ষার দিনে শুরুর আধা ঘণ্টা আগে থেকে পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত ফেসবুকসহ সব ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া ও অ্যাপস বন্ধ রাখার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এজন্য বিটিআরসিকে (বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরি কমিশন) একটা লিমিটেড টাইমের জন্য ফেসবুক বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছি। কতক্ষণ বন্ধ থাকবে সে টাইমটা মেনশন করছি না, আলাপ করে সময়টা নির্ধারণ করা হবে। একেবারে বন্ধ তা নয় একটা লিমিটেড টাইমের জন্য বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে।


ফেসবুক ছাড়া আরও অন্যান্য যোগাযোগ মাধ্যম আছে যেখানে প্রশ্ন ফাঁস হয়- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে নাহিদ বলেন, আমি ফেসবুক বলতে বুঝিয়েছি প্রযুক্তিগত বিষয়গুলো। আমি কেবল একটার নাম উল্লেখ করেছি। প্রযুক্তিগত যে সুযোগগুলো তারা (প্রশ্ন ফাঁসকারী) নেয় সেগুলো যাতে বন্ধ করা যায়। তারাও (বিটিআরসি) চিন্তা করছেন কী কী মাধ্যমে এটা হতে পারে। কীভাবে এগুলো বন্ধ করা যেতে পারে।


শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসএসসি পরীক্ষায় সাড়ে নয়টার মধ্যেই প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে তার নিজ নিজ সিটে বসতে হবে। এর পরে কেউ প্রবেশ করলে কোনো অনুরোধ গ্রহণ করা হবে না। প্রতিদিন পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের খাম সাড়ে নয়টার আগে কেন্দ্র সচিব খুলতে পারবেন না। এ সকল কার্যক্রম মনিটরিংয়ের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে একটি করে বিশেষ টিম থাকবে। আমি নিজেও এ রকম একটি টিমের সদস্য থাকব।


তিনি বলেন, কোনো কেন্দ্রে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মকর্তারা স্মার্টফোন নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন না। আমি নিজেও কোনো কেন্দ্রে ফোন নিয়ে প্রবেশ করব না।


নাহিদ বলেন, প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে আমরা সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করব। আপনারা জানেন বিজি প্রেসের অবস্থা আগে কোন জায়গায় ছিল। আমরা বিজি প্রেসকে সে জায়গা থেকে একটা জবাবদিহিতার জায়গায় আনতে পেরেছি। অনেকে বলেন- অনলাইনে পাঠিয়ে জেলায় জেলায় প্রশ্নপত্র ছাপা হোক। আমরা যার কাছে পাঠাব তিনি নিজেই যদি প্রশ্নপত্র ফাঁস করেন, তাহলে কী হবে? এই দিক বিবেচনায় নিয়ে আমরা সেটার পক্ষে সিদ্ধান্ত দিতে পারিনি।


তিনি বলেন, আপনারা জানেন এ পর্যন্ত ১৬ শিক্ষককে প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে। এজন্য প্রশ্ন  ফাঁস ঠেকাতে শিক্ষকদের আরো শক্তভাবে মনিটরিং করতে চাই।


অনেক সময় ভুয়া প্রশ্ন বিক্রি হয়। তাই এ ধরনের খবরে কাউকে কান না দেয়ার আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী।


প্রসঙ্গত, আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষা। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিভিন্ন পরীক্ষা প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে সরকারকে।

 


Top