ঢাকায় পৌঁছেছেন প্রণব মুখার্জি | daily-sun.com

ঢাকায় পৌঁছেছেন প্রণব মুখার্জি

ডেইলি সান অনলাইন     ১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৭:১৭ টাprinter

ঢাকায় পৌঁছেছেন প্রণব মুখার্জি

 

 

পাঁচ দিনের ব্যক্তিগত সফরে আজ রবিবার (১৪ জানুয়ারি) ঢাকায় পৌঁছেছেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি। বিকেল ৪টায় প্রণব মুখার্জিকে বহনকারী জেট এয়ারলাইনসটি  হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

এ সময় তাকে স্বাগত জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।


বাংলাদেশ সফরকালে প্রণব মুখার্জি এখানে এক সাহিত্য সম্মেলনে যোগদান করবেন এবং রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করবেন। ভারতের সাবেক এই প্রেসিডেন্ট মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। সেখানে তাকে সম্মানসূচক ডি. লিট ডিগ্রি প্রদান করা হবে। 


এ ছাড়া সাবেক এই রাস্ট্রপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি সম্মান জানাতে নগরীর ধানমন্ডি-৩২ এ বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করবেন।


এ ছাড়াও প্রণব মুখার্জি চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার শহীদ সূর্য সেনের বাড়ি পরিদর্শন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়াও তিনি ঢাকায় অবস্থানকালে অর্থমন্ত্রী এ এম এ মুহিতের আমন্ত্রণে এক নৈশভোজে অংশগ্রহণ করবেন। কিন্তু বাংলাদেশের প্রবল উৎসাহ থাকা সত্ত্বেও কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে যাচ্ছেন না ভারতের প্রাক্তন এই রাষ্ট্রপতি।


কলকাতাভিত্তিক গণমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এটা ঠিকই যে, গত চল্লিশ বছরে শাসক দল হোক বা বিরোধী শিবির— বাংলাদেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক রচনায় প্রণব বাবুর প্রভাব থেকেছে সবচেয়ে বেশি। বর্তমান সফরটিতে তার প্রত্যক্ষ কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি নেই ঠিকই। কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই এই গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী দেশে আসছেন তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে হাসিনার সঙ্গে ‘ট্র্যাক টু’ আলোচনা করতেই।

 

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ভোটের মুখে দাঁড়ানো বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কটিও এখন যথেষ্ট স্পর্শকতার জায়গায় দাঁড়িয়ে। তিস্তা চুক্তি এখনও বিশ বাঁও জলে। আওয়ামী লীগ সূত্রের খবর, রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে নয়াদিল্লির অবস্থানে হতাশ হাসিনা। প্রণববাবু রোহিঙ্গা শরণার্থীদের শিবিরে গেলে কিছুটা হলেও সুযোগ ছিল সেই ক্ষত মেরামতের। কিন্তু কূটনৈতিক সূত্রের খবর, মোদী সরকার সেই ঝুঁকি নিতে নারাজ।

 

আনন্দবাজার আরও বলছে, প্রণব বাবু যদি চট্টগ্রামে না-যেতেন, তা হলে রোহিঙ্গা শিবির যাওয়ার প্রসঙ্গই উঠত না। কিন্তু চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবির আকাশপথে খুবই কাছে। প্রণব বাবুর ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর, তিনি নিজেও আগে ভেবেছিলেন শিবিরে যাবেন। ভারত যে শরণার্থীদের প্রতি সহানুভূতিশীল সেই বার্তা যাবে। কিন্তু সাউথ ব্লকের বক্তব্য, প্রণব বাবু গেলে আরও বেশি প্রশ্ন উঠত। জানতে চাওয়া হতো, ভারত রোহিঙ্গা নিয়ে কী অবস্থান নিচ্ছে? ভারতের মিয়ানমার নীতি নিয়েও অস্বস্তিকর প্রশ্ন উঠে বিতর্ক বাড়ত। আর তাই সচেতনভাবেই এই না-যাওয়ার সিদ্ধান্ত।


পাঁচ দিনের ব্যক্তিগত সফর শেষে ১৮ জানুয়ারি তাঁর ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে।

 

 


Top