রক্তমুখী নীলা সবার সহ্য হয়না! | daily-sun.com

রক্তমুখী নীলা সবার সহ্য হয়না!

ডেইলি সান অনলাইন     ১৩ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৫:৩৯ টাprinter

 রক্তমুখী নীলা সবার সহ্য হয়না!

নীলা বা রক্তমুখী নীলা ফকিরকে রাজা করতে পারে। আবার রাজাকে ফকির করতেও এর লহমা মাত্র সময় লাগে। এমনও বলা হয়, রক্তমুখী নীলা এই যুগে দ্রুততম কার্যকর রত্ন। কিন্তু নীলা ধারণ করার আগে আমরা সাত-পাঁচ ভেবে পিছিয়ে আসি। অথচ ভারতীয় জ্যোতিষেই সেই পদ্ধতি বলা রয়েছে, যা থেকে সহজেই নির্ণয় করা সম্ভব, নীলা ও রক্তমুখী নীলা আপনার সহ্য হবে কি না।  

এখানে রইল সেই পদ্ধতিটি সম্পর্কে আলোচনা।

 

• প্রথমেই নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন, আপনাকে যে বিক্রেতা নীলা বা রক্তমুখী নীলা বিক্রি করছেন, তিনি নির্ভরযোগ্য কি না। অতি অভিজ্ঞ রত্ন ব্যবসায়ী ছাড়া এই রত্ন ক্রয় একেবারেই উচিত নয়।

 

• আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে, আপনি যে নীলাটি কিনছেন, তাতে ‘দুধিয়া’ নামের দোষ রয়েছে কি না। নীলাটি কেনার আগে ভাল করে লক্ষ করুন, রত্নটিতে সাদা রংয়ের সর্পিল কিছু রয়েছে কি না। যদি থাকে, সেই রত্ন পরিহার করুন।

এমন রত্ন আপনাকে মুহূর্তের মধ্যে বিপদে ফেলতে পারে। ঋণজালে জড়িয়ে পড়া থেকে বিবাহবিচ্ছেদ— যা খুশি বিপদ ঘটতে পারে দুধিয়া-দোষ যুক্ত নীলা ধারণ করলে।

 

• নীলা বা রক্তমুখী নীলা ধারণ করার আগে সেটিকে একটি কাপড়ে মুড়ে সেলাই করে ফেলুন। সেই কাপড়ে মোড়া রত্নটিকে আপনি তাগার মতো করে ধারণ করুন। কাপড়টিতে একটি অতি ক্ষুদ্র ছিদ্র রাখবেন, যাতে নীলার সামান্য স্পর্শ আপনার শরীরে থাকে। এবার পূর্ব দিকে মুখ করে বাহুতে তাগাটি পরুন। এর রপে ৭২ ঘণ্টা খেয়াল রাখুন, কোনও ছোটখাটো বিপর্যয় আপনাকে ঘিরে ঘটছে কি না।

 

• সদ্য কেনা নীলাটি ধারণ না করে আপনার মাথার বালিশের নীচে রেখেও দেখতে পারেন। যদি তিন রাত্রি ক্রমাগত আপনি দুঃস্বপ্ন দেখেন, তাহলে ওই রত্ন পরিহার করাই শ্রেয়।

 


Top