সরকার গণতন্ত্রের নিষ্ঠুর প্রতিপক্ষ: রিজভী | daily-sun.com

সরকার গণতন্ত্রের নিষ্ঠুর প্রতিপক্ষ: রিজভী

ডেইলি সান অনলাইন     ৫ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৬:৫৩ টাprinter

সরকার গণতন্ত্রের নিষ্ঠুর প্রতিপক্ষ: রিজভী

 

বর্তমান সরকারকে গণতন্ত্রের নিষ্ঠুর প্রতিপক্ষ হিসেবে উল্লেখ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, সরকারের বাকশালী প্রেতাত্মা আরও বিধ্বংসী রূপ নিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছে। দখল আর লুটপাট চিরস্থায়ী রূপ দিতে তারা বিরোধী দলশূন্য রাষ্ট্র ব্যবস্থা কায়েম করতে চাচ্ছে। বলেন, আজ আওয়ামী লীগ ঢাকায় দু’টি সমাবেশ করছে অথচ বিএনপিকে সমাবেশ করতে বাধা দেয়া হল। আজ শুক্রবার (৫ জানুয়ারি) সকালে নয়াপল্টন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রুহুল কবির রিজভী।


তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যে গণতন্ত্র হত্যাকারী দল তার আর একটি প্রমাণ হলো-আজ বিএনপিকে সমাবেশ করতে অনুমতি না দেয়া। তারা যদি গণতান্ত্রিক রীতিনীতিতে ন্যূনতম বিশ্বাসী দল হতো তাহলে বিএনপিকে সভা-সমাবেশ করতে বাধা দিতো না। এর মাধ্যমে সরকারের গণতন্ত্র ও গণতন্ত্রে স্বীকৃত বিরোধী দলের অধিকারের ওপর বৈরী আচরণ প্রকাশ পেলো।


বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি বিতর্কিত ও কলঙ্কিত নির্বাচনকে আড়াল করার জন্যই আজ বিএনপি’র কর্মসূচি পালনে বাধা দিতে পোড়া মাটি নীতি অবলম্বন করা হয়েছে। ভোটারবিহীন সে দিনের নির্বাচন দেশে বিদেশে যা বিতর্কিত ও কলঙ্কিত নির্বাচন হিসেবে গণ্য হয়েছে, কেউ তাদের সেই নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেয়নি বলেই তাদের এই লজ্জা।


একই সঙ্গে ৫ জানুয়ারি উপলক্ষে সমাবেশের অনুমতি না দেওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। আগামীকাল শনিবার (৬ জানুয়ারি) ঢাকা মহানগরীর থানায় থানায় এই প্রতিবাদ বিক্ষোভ করা হবে বলে জানান রিজভী। তিনি জানান, সমাবেশের অনুমতি চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু পাওয়া যায়নি। তাই শনিবার ঢাকা মহানগরে প্রতিটি থানায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে।


প্রসঙ্গত, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৪ বছর পূর্তির দিন ৫ জানুয়ারি। ২০১৪ সালের এই দিনে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচন বর্জন করে। ১৫৩ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পাস করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী। বাকি আসনগুলো মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল বানিয়ে কোনো রকম নির্বাচন দিয়ে বৈতরণী পার হয় আওয়ামী লীগ। সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকারও গঠন করে দলটি।


সে থেকে দিনটিকে বিএনপি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ আর আওয়ামী লীগ ‘গণতন্ত্রের মুক্তি দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। দিবসটি উপলক্ষে আজ শুক্রবার কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু, প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের অনুমতি দেওয়া হয়নি।


বিপরীতে আওয়ামী লীগ ঢাকার তিনটি স্পটে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। রাজধানীর বনানীতে বিকেল তিনটায় মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে মহানগর দক্ষিণ বিজয় র‌্যালি করে।


এছাড়া গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালনে বিএনপি ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি চাইলেও সেখানে নাম সর্বস্ব ইউনাটেড ইসলামিক পার্টিকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ। এতে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ উপস্থিত ছিলেন।


এদিকে সোহরাওয়ার্দীতে অনুমতি না পেয়ে বিএনপি পল্টনে সমাবেশের অনুমতি চাইলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, পল্টনে সমাবেশ করার সুযোগ নেই। এ ব্যাপারে মতিঝিল বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) শিবলী নোমান বলেন, পল্টনে কারো সমাবেশ করার সুযোগ নেই। রাস্তার উপর সমাবেশ করা সম্ভব নয়। তাছাড়া রাস্তা সিটি করপোরেশনের, আমরা অনুমতি দিতে পারি না।

 


Top