খ্রিস্টান বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যায় স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ | daily-sun.com

খ্রিস্টান বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যায় স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ

ডেইলি সান অনলাইন     ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৮:১৫ টাprinter

 খ্রিস্টান বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যায় স্বামীকে  জিজ্ঞাসাবাদ

রাজধানীর মহাখালীর আরজ‍তপাড়ায় নিজ বাসায় জবাই করে মিলু মীলগেট গোমেজ (৬৫) নামে বৃদ্ধাকে খুনের ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। কে বা কারা কী উদ্দেশে ওই বৃদ্ধাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে তা রহস্যের অন্তরালেই রয়ে গেছে।

হত্যাকাণ্ডের সময় নিহতের স্বামী হিউবার্ড অনিল গোমেজ (৭০) ঘটনাস্থলেই ছিলেন। তাকে ও গৃহকর্মীকে থানা হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

অনিল গোমেজের ভাষ্য অনুযায়ী, শুক্রবার সকালে চার/পাঁচজন মুখোশধারী যুবক দরজায় নক করে। দরজা খুলতেই তারা বাসার ভিতরে প্রবেশ করে মিলু গোমেজকে হত্যা করে। বাধা দিতে গেলে মুখোশধারীরা অনিল গোমেজকেও আঘাত করে পালিয়ে যায়। জিজ্ঞাসাবাদে এখন পর্যন্ত অনিলের কাছ থেকে স্পষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

 

শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর তেজগাঁও থানাধীন মহাখালী আরজতপাড়া এলাকার ৩৮ নম্বর নিজ বাড়ির তৃতীয় তলা থেকে মিলু মীলগেট গোমেজের গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। 

নিহত মিলু মীলগেট গোমেজ ও তার স্বামী হিউবার্ড অনিল গোমেজ এ বাড়িতে বসবাস করতেন। তাদের চার ছেলের মধ্যে স্টালিন গোমেজ, রবার্ড ক্লাইভ গোমেজ ও লিংকন গোমেজ স্ত্রীসহ কানাডাতে বসবাস করেন। ছোট ছেলে মোজেস গোমেজ থাকেন আমেরিকায়।

 

তেজগাঁওয়ে ৮ কাঠার একটি জমি ছাড়াও ফার্মগেটের ইউসিসি টাওয়ারে এই দম্পতির দুটি ফ্ল্যাট রয়েছে। তাদের গ্রামের বাড়ি গাজীপুরের কালীগঞ্জেও বেশ জমিজমা রয়েছে। তবে জমি-জমা নিয়ে কারও সঙ্গে তাদের বিবাদ নেই বলে জানা গেছে। ঘটনার পর তাদের পাসপোর্ট ও ভ্রমণ সংক্রান্ত জরুরি জিনিসপত্র খোয়া গেছে বলেও অভিযোগ নিহতের পরিবারের।

 

সুরতহাল প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে, শুক্রবার সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ৮টার মধ্যে মিলু মীলগেট গোমেজকে হত্যা করা হয়েছে। ওই ফ্ল্যাটের ড্রইং রুমের মেঝেতে মরদেহটি পড়েছিলো। পরে স্থানীয় সুনমা ডি কস্তার সহযোগিতায় মরদেহ উল্টে-পাল্টে দেখা যায়, মুখ ও মাথা স্বাভাবিক, চোখ বন্ধ ও স্বাভাবিক, নাক ও কান স্বাভাবিক। নিহতের গলার বাম পাশে কানের নিচে ধারালো চাকুর আঘাত দেখা গেছে। জখমের দৈর্ঘ্য আনুমানিক ৫ ইঞ্চি। ডান হাতের কব্জির উপরিভাগে আঘাতের চিহ্ন এবং বাম হাতে রক্তের দাগ রয়েছে। 

 

পুলিশ বলছে, ঘটনাস্থলের মেঝেতে মরদেহটি পড়ে থাকতে দেখা যায় এবং নিহতের স্বামী অনিল গোমেজ লাশের পাশে থাকা সোফায় বসে ছিলেন। রক্তমাখা একটি চাকুও তার সামনের টি-টেবিলে রাখা ছিলো। হত্যাকাণ্ডের আগে বাইরে থেকে কেউ ফ্ল্যাটে প্রবেশ করেছে এমন কোনো প্রমাণ এখনও পায়নি।

নিহতের ভাগ্নি সিনথিয়া গোমেজ বলেন, আমার মামা-মামি ঘুরতে খুব পছন্দ করতেন। চার মাস আগে কানাডা থেকে তারা দেশে আসেন। তারাও কানাডার নাগরিক। আজ সকাল ৬টা ৫০ মিনিটে গাজীপুরে তার ছোট বোনের সঙ্গে ফোনে কথাও বলেন মামী। সেখানে বেড়াতে যাওয়ার কথা ছিলো তাদের।

 


Top