নতুন বছরে সব খাতের দুর্নীতিবাজদের ধরতে অভিযান: দুদক চেয়ারম্যান | daily-sun.com

নতুন বছরে সব খাতের দুর্নীতিবাজদের ধরতে অভিযান: দুদক চেয়ারম্যান

ডেইলি সান অনলাইন     ৯ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৩:৩২ টাprinter

নতুন বছরে সব খাতের দুর্নীতিবাজদের ধরতে অভিযান: দুদক চেয়ারম্যান

 

নতুন বছরে সব খাতের দুর্নীতিবাজদের ধরতে তালিকা করে অভিযান পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তিনি বলেন, জনগণের টাকা লুটপাট করার দিন শেষ। জনগণের টাকা নিয়ে আর ছিনিমিনি খেলতে দেয়া হবে না। শনিবার সকালে (৯ ডিসেম্বর) সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সামনে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসের অনুষ্ঠানের উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।


সব দুর্নীতিবাজকে একসঙ্গে ধরা সম্ভব নয়। তবে আমরা আগামী বছর থেকে তদন্ত ও প্রমাণ সাপেক্ষে বড় বড় দুর্নীতিবাজদের আইনের আওতায় আনতে আমরা অভিযান পরিচালনা করবো। কোনো দুর্নীতবাজকে ছাড় দেয়া হবে না। এজন্য কমিশন নিজস্ব গবেষণা ও গোয়েন্দা তথ্যকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে বলে জানান দুদক চেয়ারম্যান


বিদেশে পাচার করা অর্থ ফেরত আনার ব্যাপারে দুদকের কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা হচ্ছে, আরও মামলা হবে, তদন্ত হবে, চার্জশিট দিতে হবে। আমরা ইন্টারপোলের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেবো।


বেসিক ব্যাংকের ঋণ জালিয়াতি প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, কি ধরনের দুর্নীতির তথ্য পাওয়া গেলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, তদন্তের বিষয় বলা ঠিক হবে না। তবে জনগণের টাকা নিয়ে যারা ছিনিমিনি খেলছে তাদের রেহাই নেই। বেসিক ব্যাংক শুধু নয়, দুর্নীতি করলে কেউই রেহাই পাবে না। অপরাধ করলে শাস্তি পেতেই হবে, এটা আমাদের স্ট্যান্ড।

 

তিনি বলেন, আমরা একটি ম্যাসেজ দিতে চাই, আপনারা যারা জনগণের অর্থ নিয়ে কাজ-কারবার করছেন, আপনারা ন্যায়নীতি মানবেন, ব্যাংকিং ল অ্যান্ড প্র্যাকটিস সম্পর্কে জানবেন এবং সে অনুযায়ী কাজ করবেন। জনগণের টাকা নিয়ে ছিনিমিনি খেলার দিন শেষ।


প্রসঙ্গত, বেসিক ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান ও সাবেক পরিচালকদের দুই দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।


অপর এক প্রশ্নের জবাবে ইকবাল মাহমুদ বলেন, দুর্নীতিবাজদের স্ত্রীর নামে সম্পদ রাখা একটা সামাজিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে। এজন্য অনেক সময়ই দুর্নীতিবাজদের স্ত্রীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হয়। তিনি বলেন, মনে হয় অধিকাংশ সরকারি কর্মকর্তাদের শ্বশুর বাড়ির লোকেরা ধনী। তারা স্ত্রীদের নামে সম্পদ থাকার কথা বলছেন। এর বড় কারণ আমাদের দেশের মা-বোনরা সচেতন নয়। এজন্য মা-বোনদের সচেতন করার চেষ্টা করছি। এ বিষয়টি অধিক গুরুত্ব দিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছি।


ইকবাল মাহমুদ বলেন, আমাদের সকল স্তরের নাগরিক ছাত্র, শিক্ষক, রাজনীতি, সুশীল সমাজসহ ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ হতে হবে। তা না হলে দুর্নীতি নির্মূল করা যাবে না। শুধু দুদক, শুধু মিডিয়া কিংবা সরকার দুর্নীতি দূর করতে পারবে না।


‘আসুন, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ হই’ প্রতিপাদ্যে শনিবার (৯ ডিসেম্বর) জাতিসংঘ ঘোষিত আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস পালিত হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে সকালে দুদকের নেতৃত্বে রাজধানীতে একটি শোভাযাত্রা বের হয়।  চেয়ারম্যান ও কমিশনারদের নেতৃত্বে দুদকের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, গার্ল গাইডস, বয়েজ স্কাউট, আনসার ও বিএনসিসির সদস্যরা এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন।

 


Top