'স্বামীর সঙ্গে শুয়ে আছি' শুনেই প্রেমিকের আত্মহত্যা | daily-sun.com

'স্বামীর সঙ্গে শুয়ে আছি' শুনেই প্রেমিকের আত্মহত্যা

ডেইলি সান অনলাইন     ৩০ নভেম্বর, ২০১৭ ১৬:৪২ টাprinter

'স্বামীর সঙ্গে শুয়ে আছি' শুনেই প্রেমিকের আত্মহত্যা

প্রেমিকা যে কবে অন্যের হয়ে গিয়েছে তা জানতেনই না যুবক। আর প্রেমিকার কাছ থেকে ফোনে একটা বাক্য শুনেই আত্মঘাতী হলো সে।

ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য দমদমের শেঠবাগানে। ফোনের কথোপকথনে যেই না প্রেমিকা বলেছে, সে স্বামীর সঙ্গে শুয়ে রয়েছে ব্যস আর নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি রাজীব পাল। প্রেমে প্রত্যাখাত হয়ে আত্মহননের পথ বেছে নেন এই যুবক। অভিযুক্ত প্রেমিকা ঝিলিক রায়কে আটক করেছে পুলিশ।

 

 

পুলিশ জানিয়েছে, দমদমের শেঠবাগানের বাসিন্দা রাজীবের সঙ্গে তিন মাস আগে ফেসবুকের মাধ্যমে আলাপ হয় ঝিলিকের। ঝিলিকের বাড়ি বরানগরে। তবে দমদমের বেদিয়াপাড়ায় একটি বাড়িতে সে থাকত। বন্ধুত্বের সম্পর্ক প্রেম পর্যন্ত গড়ায়। এরপর ঝিলিককে বিয়ের প্রস্তাব দেন রাজীব।

 

 

কিন্তু বিয়ের জন্য সময় চায় ঝিলিক। এর মধ্যেই আরো একজনের সঙ্গে ঝিলিকের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। অন্যদিকে, রাজীবের কাছে নাকি প্রায়শই টাকা চাইত ঝিলিক। প্রেম টিকিয়ে রাখার জন্য টাকা দিয়েও দিতেন রাজীব।

 

গোল বাঁধে মঙ্গলবার রাতে। রাজীব ঝিলিককে ফোন করেন। ফোনে ঝিলিক জানায়, তার বিয়ে হয়ে গিয়েছে এবং সে স্বামীর সঙ্গে শুয়ে আছে। তার সাংসারিক জীবনে যেন রাজীব হস্তক্ষেপ না করে। এরপরই মন ভেঙে যায় রাজীবের। ঘরে কান্নাকাটি শুরু করে দেন তিনি। দরজা বন্ধ করে রাতে শুয়ে পড়েন তিনি। বুধবার সকালে অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করেও তাঁর সাড়া পাওয়া যায়নি। পরে ঘরের দরজা ভেঙে রাজীবের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। গলায় চাদরের ফাঁস লাগিয়ে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় তাঁর নিথর দেহ।

 

 

রাজীবের এক পিসি জুলি দের অভিযোগ, আমার ভাইপোর কাছ থেকে টাকা চেয়ে ঝিলিক মানসিক চাপ তৈরি করছিল। তবু, রাজীব সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে চেয়েছিল। বিয়ের প্রস্তাবও দেয়। কিন্তু, ঝিলিক অস্বীকার করে। রাজীব বলে, তোকে না পেলে আমি মরে যাব। কিন্তু, ও বলে তুই মরে যা। আমার কিছু এসে যায় না। প্রেম ভেঙে যাওয়ায় আত্মঘাতী হয়েছে রাজীব। রাজীবের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় পুলিশ। রাজীবের পরিবারের অভিযোগ, প্রথমে পুলিশ অভিযোগ নিতে চায়নি। পরে অভিযোগ নেয়। আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে ঝিলিককে আটক করা হয়েছে।

 


Top