বাংলাদেশে এসে জন্ম নিল যেসকল রোহিঙ্গা শিশু | daily-sun.com

বাংলাদেশে এসে জন্ম নিল যেসকল রোহিঙ্গা শিশু

ডেইলি সান অনলাইন     ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ২০:১৬ টাprinter

বাংলাদেশে এসে জন্ম নিল যেসকল রোহিঙ্গা শিশু

স্বামীর খবর জানেন না তিনি
রামিদা বেগমের স্বামীকে ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। এরপর তাঁদের বাড়িঘরও পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তার সপ্তাহখানেক পর পালিয়ে বাংলাদেশে চলে যান তিনি। ফলে স্বামীর খবর এখন জানেন না রামিদা। ফেব্রুয়ারির ১০ তারিখে যখন ছবিটি তোলা হয় তখন তাঁর কন্যার বয়স ছিল ১০ দিন। তখনও মেয়ের কোনো নাম দেয়া হয়নি রামিদার।

 

 

এই শিশুর বাবাকে হত্যা করা হয়েছে
স্বামীকে মিয়ানমারের সেনারা হত্যা করায় বাবামা-র সঙ্গে বাংলাদেশে চলে যান ১৮ বছরের নূর কায়েস। কোলে তাঁর ২৬ দিনের সন্তান, যার এখনও কোনো নাম দেননি তিনি। ছবিটি ৯ ফেব্রুয়ারি তোলা।

 

 

সাত দিনের মেয়ে
ফেব্রুয়ারির ৮ তারিখে যখন ছবিটি তোলা হয় তখন আসমত আরার মেয়ের বয়স ছিল মাত্র সাত দিন। মাসখানেক আগে তিনি প্রতিবেশীদের সঙ্গে পালিয়ে বাংলাদেশে চলে যান।

বাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার আগে তাঁর শ্বশুরকেও হত্যা করা হয়।

 

 

 

সন্তানদের বাঁচাতে বাংলাদেশে
একমাস বয়সি ছেলে সন্তানের সঙ্গে রাজুমা বেগম। যখন বাংলাদেশে আসছিলেন তখন গর্ভবতী ছিলেন তিনি। সঙ্গে ১১ মাসের আরেকটি সন্তানও ছিল। ‘‘আমি বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছি কারণ মিয়ানমারের ভয়ের মধ্যে ছিলাম। আমার সন্তানদের বাঁচাতে চেয়েছি আমি’’, রয়টার্সকে বলেন বেগম। ছবিটি ১২ ফেব্রুয়ারি তোলা।

 

দেশে ফিরতে আগ্রহী সানোয়ারা
৯ ফেব্রুয়ারি তোলা এই ছবিতে ২৫ দিনের কন্যা কোলে ২০ বছর বয়সি মা সানোয়ারা বেগমকে দেখা যাচ্ছে। প্রায় আড়াই মাস আগে স্বামীর সঙ্গে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসেছেন তিনি। এখন আছেন কক্সবাজারের কুতুপালাং আশ্রয়কেন্দ্রে। মিয়ানমারের পরিস্থিতি ভাল হলে নিজ ঘরে আবারও ফিরে যেতে চান সানোয়ারা।

 

 

বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে
ফেব্রুয়ারির ৯ তারিখে তোলা এই ছবিতে মারিজানকে তাঁর ২৫ দিন বয়সি কন্যা সন্তান সহ দেখা যাচ্ছে। পাশে তাঁর ছেলে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ঘর পুড়িয়ে দেয়ায় মাসখানেক আগে তাঁরা নাফ নদী পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে পৌঁছান।

 

 

কন্যার জ্বর
দু’মাস বয়সি মেয়ের জ্বর কিন্তু মা আরাফা বেগম জানেন না ক্লিনিক কোথায়। আড়াই মাস আগে স্বামী ও পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে বাংলাদেশে আসেনি তিনি।

বাচ্চা পর্যাপ্ত বুকের দুধ পাচ্ছে না
মিনারা বেগমের এক মাস বয়সি সন্তান পর্যাপ্ত বুকের দুধ পাচ্ছে না, কারণ তার মা পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার খেতে পান না। ফলে স্বাস্থ্যকর না হলেও স্থানীয় বাজার থেকে গুঁড়া দুধ কিনে খাওয়াতে হচ্ছে তাকে। ছবিটি ১০ ফেব্রুয়ারি তোলা।

 

এলোপাথাড়ি গুলি
১৬ দিনের সন্তান কোলে মা আমিনা। ‘‘মাস দেড়েক আগে মিয়ামারের সেনাবাহিনী আমাদের গ্রামে ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। আমি কোনোরকমে প্রতিবেশীদের সঙ্গে পালিয়ে বেঁচেছি। তারা আমার চাচা আর ছোটভাইকে ধরে নিয়ে গেছে। তারা বেঁচে আছে কিনা জানিনা’’, ৮ ফেব্রুয়ারি রয়টার্সকে কথাগুলো বলেন তিনি।

 

বয়স মাত্র একদিন
ফাতেমার সন্তানের বয়স মাত্র একদিন। ছবিটি ফেব্রুয়ারির ৯ তারিখে তোলা। মিয়ানমারে তাদের ঘর পুড়িয়ে দেয়ায় মাস দুয়েক আগে স্বামীর সঙ্গে বাংলাদেশে চলে আসেন। এখন তাঁর স্বামী দিনমজুর হিসেবে কাজ করছেন।

 

-ডিডাব্লিউ

 


Top