বিশ্বের ভয়াবহতম কিছু পারমানবিক বিস্ফোরণ | daily-sun.com

বিশ্বের ভয়াবহতম কিছু পারমানবিক বিস্ফোরণ

ডেইলি সান অনলাইন     ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৬:৪২ টাprinter

বিশ্বের ভয়াবহতম কিছু পারমানবিক বিস্ফোরণ

 

উত্তর কোরিয়ার পরীক্ষা করা বোমাটি যদি হাইড্রোজেন বোমা হয়ও, তার পরেও এখন পর্যন্ত বিশ্বে ভয়াবহ যেসব পারমানবিক বোমার পরীক্ষা হয়েছে, সেগুলোর সাথে এটির তুলনা কতটা করা যায়? এখন পর্যন্ত পৃথিবীর বুকে মানুষের সৃষ্ট সবচেয়ে বড় বিস্ফোরণ হয়েছিল ১৯৬১ সালে যখন তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন 'জার বোমবা' বা 'বোমার রাজা' নামে একটি পারমানবিক বোমা পরীক্ষা করে। ঐ হাইড্রোজেন বোমার শক্তি ছিল ৫০,০০০ কিলোটন।


আর্কটিক অঞ্চলে নোভায়া জেমলিয়া নামে দ্বীপপুঞ্জের যে জায়গায় ঐ দানবীয় বোমাটি পরীক্ষা করা হয়েছিল, তার ৩৫ মাইলের মধ্যে সমস্ত ভবন, স্থাপনা ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। এমনকী শত শত কিলোমিটার দুরেও ভবনে ক্ষতি হয়েছিল। ফিনল্যান্ড, নরওয়ের মত অনেক দুরের দেশগুলোতেও বহু বাড়ির জানালার কাঁচ ভেঙ্গে পড়েছিল।

 

রাশিয়ার 'বোমার রাজা'র বিস্ফোরণ

 

তবে বিশ্বের প্রথমবারের মত হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা করে যুক্তরাষ্ট্র ১৯৫২ সালে, প্রশান্ত মহাসাগরের মার্শাল দ্বীপে। সেটির শক্তি ছিল ১০,০০০ কিলোটন। ৫০ কিমি দুরে একটি জাহাজে বসে সেই পরীক্ষা পর্যবেক্ষণ করেছিলেন মার্কিন একজন পদার্থ বিজ্ঞানী হ্যারল্ড অ্যাগনিউ। তিনি পরে বলেছিলেন - "অত দূরে বসে যে তাপ সেদিন বোধ করেছিলাম তা জীবনেও ভুলবোনা। ক্রমাগত তাপ আসছিলো। ভীতিকর এক অভিজ্ঞতা ছিলো সেটি।"


পরীক্ষার পর ধোঁয়ার কুন্ডুলি ৫০ কিমি উপরে উঠে গিয়েছিল, ছড়িয়ে পড়েছিল ১০০ কিমি পর্যন্ত। 

 

 

১৯৫২ সালে প্রথম হাইড্রোজেন বোমা পরীক্ষা করে আমেরিকা


তবে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে শক্তিশালী পারমানবিক পরীক্ষা ছিল ১ মার্চ ১৯৫৪ সালে ঐ মার্শাল দ্বীপেরই বিকিনি অ্যাটল এলাকায়। শক্তি ছিল ১৫০০০ কিলোটন। পরীক্ষার পর ১১,০০০ কিমি পর্যন্ত তেজস্ক্রিয়তা ছড়িয়ে পড়েছিলো।


শত শত মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছিলো, যারা আর কখনই বাড়িতে ফিরতে পারেনি।

 


Top