প্রাপ্তি হত্যা ও অপহরণ চেষ্টায় ৪ জনকে আসামী করে মামলা | daily-sun.com

প্রাপ্তি হত্যা ও অপহরণ চেষ্টায় ৪ জনকে আসামী করে মামলা

ডেইলি সান অনলাইন     ২৫ আগস্ট, ২০১৭ ১২:৩৩ টাprinter

প্রাপ্তি হত্যা ও অপহরণ চেষ্টায় ৪ জনকে আসামী করে মামলা

 

চাঞ্চল্যকর সাত খুন মামলা পরিচালনাকারী নারায়ণগঞ্জ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ওয়াজেদ আলী খোকনের মেয়ে মাইশা ওয়াজেদ প্রাপ্তিকে (১৮) হত্যা ও অপহরণ চেষ্টার ঘটনায় ৪ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) সন্ধ্যায় সেলিনা ওয়াজেদ মিনু বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন। সদর মডেল থানার ওসি শাহিন পারভেজ গণমাধ্যমকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


তিনি জানান, মামলায় অজ্ঞাত পরিচয় ৪ জনকে আসামী করা হয়েছে। যাদের বিরুদ্ধে অপহরণ ও হত্যার চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে। পুলিশ আসামীদের শনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে।


উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ এবিসি স্কুলের ও লেভেলের ছাত্রী প্রাপ্তি হাজী মঞ্জিলের চতুর্থ তলায় তৌহিদুল ইসলামের ‘ম্যাথ’ কোচিং সেন্টারে প্রাইভেট পড়েন। প্রতিদিনের মতো সন্ধ্যা ৬টায় প্রাপ্তি প্রাইভেট পড়ার জন্য আসে। এসময় একটি সাদা রঙয়ের ক্যারিনা প্রাইভেটকারে থাকা কয়েকজন যুবক তার গতিরোধ করে। এদের মধ্যে টাই স্যুট পরিহিত ৫০ থেকে ৫৫ বছরে একজন ব্যক্তি নিজেকে পিপি ওয়াজেদ আলী খোকনের বন্ধু পরিচয় দেয়।  তখন ওই যুবকরা তাকে জিজ্ঞাসা করে, 'তুমি কী ওয়াজেদ আলী খোকনের মেয়ে। প্রাপ্তি হ্যাঁ জবাব দেয়। পরে ওই লোকজন বলে, 'তোমার বাবা তো গতকাল একটা ভালো কাজ করেছে। সে ভালো আইনজীবী। সে ভালো কাজ করেছে। তাই তোমাকে মিষ্টি খাওয়াবো।'


তখন প্রাপ্তি মিষ্টি খেতে অনীহা প্রকাশ করে। এক পর্যায়ে লোকজন একটি পলিথিনে থাকা বিষাক্ত কিছু জোর করে তার মুখে ঢেলে দেয়। তখন সে কোনমতে ওই স্থান থেকে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। আশেপাশের লোকজন বিষয়টি দেখে ফেলায় ওই যুবকরা প্রাইভেটকারে করে দ্রুত রেল গেটের দিকে পালিয়ে যায়।


মাইশাকে প্রথমে শহরের খানপুরে ৩শ শয্যা হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসা শেষে রাতে বাসায় আনা হয় মাইশাকে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক একেএম তারেক জানান, প্রাপ্তিকে বিষাক্ত কিছু খাওয়ানো হয়েছিল। সেটা ওয়াশ করা হয়েছে। 


এর আগে মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলায় নিম্ন আদালত প্রদত্ত মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ২৬ জনের মধ্যে ১১ জনের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন হাইকোর্ট। আর বিভিন্ন মেয়াদে দণ্ডপ্রাপ্ত অপর ৯ জনের সাজা আগেরটিই বহাল আছে।


এর আগে গত ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত ২৬ জনের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। এ আদালতের পিপি ছিলেন ওয়াজেদ আলী খোকন। মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে আসামি পক্ষের চোখ রাঙানি ও আইনজীবীদের রোষানলে পড়লেও আইনি লড়াই চালান ওয়াজেদ আলী খোকন।

 


Top