নাইকোর সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ হাইকোর্টের | daily-sun.com

নাইকোর সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

ডেইলি সান অনলাইন     ২৪ আগস্ট, ২০১৭ ১৩:১৫ টাprinter

নাইকোর সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

 

কানাডাভিত্তিক তেল উৎপাদনকারি প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে বাপেক্স ও পেট্রোবাংলার যৌথ চুক্তি অবৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে নাইকো বাংলাদেশ ও নাইকো কানাডার সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। নির্দিষ্ট ক্ষতিপূরণ না পাওয়া পর্যন্ত এ সম্পদ বাংলাদেশের কাছে থাকবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।


এ সংক্রান্ত রিটের শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) বিচারপতি নাঈমা হায়দার ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। 


২০১৬ সালের ৯ মে বাপেক্সের সঙ্গে নাইকোর করা যৌথ উদ্যোগ চুক্তি কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। এই রুলের চূড়ান্ত শেষে আজ রায় ঘোষণা করেন আদালত। এ রায়ের ফলে গ্যাস উত্তোলন ও সরবরাহের জন্য এক যুগের বেশি আগে সরকারি প্রতিষ্ঠান বাপেক্সের সঙ্গে কানাডার প্রতিষ্ঠান নাইকোর করা যৌথ উদ্যোগ (জয়েন্ট ভেনচার) চুক্তি বাতিল হয়েছে বলে জানান আইনজীবী।
সরকারকে ক্ষতিপূরণ না দেয়া পর্যন্ত নাইকোর বকেয়া (অর্থ) টাকা পরিশোধ করা যাবে না বলেও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।


আদালতের রিট আবেদেনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার তানজীব-উল আলম। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেসুর রহমান।
নাইকো সংক্রান্ত ইন্টারন্যাশনাল আর্বিট্রেশন আদালতে হয়ে বাপেক্সের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার মঈন গনি। জ্বালানি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর শামসুল আলম এ রিট আবেদন করেন।


২০০৬ সালে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর এম শামসুল আলম একটি রিট আবেদন করেন। রিট আবেদনে বলা হয়, ২০০৩ ও ২০০৬ সালে নাইকোর সঙ্গে বাপেক্স ও পেট্রোবাংলার চুক্তি সঠিকভাবে হয়নি। দুর্নীতির মাধ্যমে হয়েছে। এ ছাড়া ২০০৫ সালে ছাতকে যে বিস্ফোরণ ঘটেছে এর ক্ষতিপূরণ হিসেবে বাংলাদেশে থাকা নাইকোর সব সম্পত্তি জব্দের জন্যও আবেদন করা হয়। এ আবেদনের শুনানি শেষে হাইকোর্ট এ রায় ঘোষণা করেন।


প্রসঙ্গত, ২০০৩ সালে বাংলাদেশে গ্যাস উত্তোলন ও সরবরাহের কাজ পায় কানাডাভিত্তিক কোম্পানি নাইকো। এ সময় তারা পেট্রোবাংলার সঙ্গে গ্যাস সরবরাহ ও কেনাবেচার চুক্তি করে, আর বাপেক্সের সঙ্গে করে একটি যৌথ উদ্যোগের চুক্তি। চুক্তি মোতাবেক ফেনী গ্যাসক্ষেত্র থেকে নাইকো গ্যাস উত্তোলন ও সরবরাহ করে। কিন্তু সুনামগঞ্জের ছাতকের টেংরাটিলায় কূপ খনন করতে গিয়ে কোম্পানিটি দুবার বিস্ফোরণ ঘটায়। বিস্ফোরণের পর থেকে বাংলাদেশ নাইকোর কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করে আসছে।

 


Top