পতিতালয়ে যুবতীদের থেকেও সেক্স ডলের কদর বেশি! | daily-sun.com

পতিতালয়ে যুবতীদের থেকেও সেক্স ডলের কদর বেশি!

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ আগস্ট, ২০১৭ ১৯:৩৭ টাprinter

পতিতালয়ে যুবতীদের থেকেও সেক্স ডলের কদর বেশি!

'ফ্যানি' নামের একটি সেক্সডল (পুতুল) অস্ট্রিয়ায় প্রথমবারের মতো কোনতাকথোফে নিষিদ্ধপল্লীতে গত জুলাইয়ে ছাড়া হয়। এর পরই বিশ্বব্যাপী সংবাদ শিরোনামে ওঠে আসে কোনতাকথোফে ও ফ্যানি।  

 

কোনতাকথোফের ওই নিষিদ্ধপল্লীতে এবার ফ্যানির জনপ্রিয়তা এতই বেশি যে, প্রকৃত যুবতীর চেয়ে খদ্দেরদের কাছে বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে ‘ফ্যানি’। প্রতি ঘন্টায় তাকে ব্যবহার করতে একজন খদ্দেরকে পরিশোধ করতে হয় ৮০ ইউরো। তারপরও ফ্যানির চাহিদা ব্যাপক। একটানা কয়েকদিন তাকে বুকিং দিয়েছেন খদ্দেররা। সিডিউলে কোনো ফাঁক নেই। 

 

ফলে খদ্দেরদের চাহিদা মেটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তাই কর্তৃপক্ষ দ্বিতীয় আরেকটি সেক্স ডল কিনেছে। প্রথম যে সেক্সডল ফ্যানি আছে সেখানে তার উচ্চতা ৫ ফুট এক ইঞ্চি। ওজন ৬ স্টোন। তার আছে লম্বা স্বর্ণালী চুল ও আকর্ষণীয় শারীরিক গঠন। তার দিকে সুঠাম দেহের, আকর্ষণীয় কোনো পুরুষের চোখ পড়লে আচ্ছন্ন হয়ে পড়েন তিনি। নিষিদ্ধপল্লীতে সেক্সডলের এমন জনপ্রিয়তা দেখে অস্ট্রিয়ার অন্য নিষিদ্ধপল্লীতে সেক্সডল চালু হচ্ছে। 

 

অন্যদিকে ফ্যানির এই চাহিদা দেখে প্রশ্ন উঠেছে, মানুষের স্থান কি তবে সেক্সডল নিয়ে নিচ্ছে! এ নিয়ে অনেক বিতর্ক। অনেক সমালোচনা। অনেক কথা। কেউ পক্ষে বলছেন। কেউ বিপক্ষে। কেউ বলছেন, এ ধারা অব্যাহত থাকলে নারী-পুরুষের পারস্পরিক বন্ধন শিথিল হতে থাকবে। এক সময় নারীর প্রতি পুরুষের আকর্ষণ থাকবে না।  


Top