‘ধর্মচর্চা সিনেমার শুটিং নয়রে পাগলা’ | daily-sun.com

‘ধর্মচর্চা সিনেমার শুটিং নয়রে পাগলা’

ডেইলি সান অনলাইন     ১৯ আগস্ট, ২০১৭ ১৩:৫৫ টাprinter

‘ধর্মচর্চা সিনেমার শুটিং নয়রে পাগলা’

 

ইদানিং সিনেমা নয়, ধর্ম-কর্ম নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন অনন্ত জলিল। শনিবার সকালে ‘ফাযায়েলে আমাল’ পড়ছেন এমন একটি ছবি শেয়ার করেছেন ফেসবুকে। সেখানে নেতিবাচক মন্তব্যই পড়ছে বেশি। রায়হান খান জুমন লিখেছেন, ‘ধর্মচর্চা নাকি ফটোসেশন?’


সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাইমুন মন্তব্য করেন, কত দেখানো রং তামাশা দেখবো কালে কালে। ধর্ম একটা ভাবগাম্ভীর্যের বিষয়, সস্তা কিছু নয় তোমরা যেভাবে লোক দেখানো সস্তা বানাচ্ছো। ধর্মচর্চা সিনেমার শুটিং নয়রে পাগলা।


মাহবুব আলী খান লেখেন, কুরআন-হাদীস রেখে ফাযায়েলে আমাল ধরেছেন। আপনি কিসের দাওয়াত দিচ্ছেন, মুসলিম জাতি সেটা ভালোভাবে অনুধাবন করতে পারছে।


আরিফ মাহমুদ লেখেন, কোরআন এবং সহীহ হাদীস পড়ার অভ্যাস করুন প্লিজ। আর তাবলিগের আমিরদের বলবেন সিহাহ সিত্তাহগুলো পড়া শুরু করতে। মনে হয় যেন, তাবলিগের মুরুব্বীরা সিহাহ সিত্তাহ থেকে 
ফাযায়েলে আমালকেই বেশি গুরুত্ব দেয় (নাউজুবিল্লাহ)। প্লিজ বিবেক দিয়ে চিন্তা করুন।


তবে অনেকেই নেতিবাচক মন্তব্যের বিপরীতে অবস্থান নিয়েছেন। যেমন; ফজলে মাহমুদ লিখেছেন, কমেন্টগুলো পড়ে বুঝলাম যে আমাদের দেশের মানুষের মন মানসিকতা কত নোংরা। একটা লোক পরিবর্তন সবে মাত্র শুরু করেছে, অথচ নেতিবাচক কমেন্ট বেড়েই চলছে। বাংলাদেশি জাতি হিসাবে আমরা কতটা নিকৃষ্ট কমেন্টগুলোই তার প্রমাণ।


বুধবার এক ভিডিও বার্তায় অনন্ত জানান, ১৮ আগস্ট থেকে নারায়ণগঞ্জের একটি মসজিদে তিনদিনের জন্য তাবলিগে যাচ্ছেন। এর আগে ২৯ জুলাই থেকে রাজধানীর ধানমন্ডির তাকওয়া মসজিদে তিন দিনের তাবলিগে ছিলেন অনন্ত। ওই সময় রবীন্দ্র সরোবরে উপস্থিত হয়ে সবাইকে ইসলামের দাওয়াত দেন। সেই খবর দেশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মিডিয়ায়ও আসে।


২০১০ সালে ঢাকাই ছবিতে পা রাখেন অনন্ত জলিল। তার অভিনীত ছবি হলো- খোঁজ দ্য সার্চ, হৃদয় ভাঙা ঢেউ, দ্য স্পিড, মোস্ট ওয়েলকাম, মোস্ট ওয়েলকাম টু ও নিঃস্বার্থ ভালোবাসা। এছাড়া বছর দুয়েক আগে দ্য স্পাই ও সৈনিক নামের দুটি ছবি নির্মাণের ঘোষণা দেন।

 


Top