ভারতকে বিদ্রূপ করে চীনের ‘বর্ণবাদী’ ভিডিও | daily-sun.com

ভারতকে বিদ্রূপ করে চীনের ‘বর্ণবাদী’ ভিডিও

ডেইলি সান অনলাইন     ১৮ আগস্ট, ২০১৭ ১৯:১৪ টাprinter

ভারতকে বিদ্রূপ করে চীনের ‘বর্ণবাদী’ ভিডিও

 চীনের সরকারি গণমাধ্যম ভারতের সঙ্গে তাদের সীমান্ত বিবাদকে কেন্দ্র করে এমন একটি ব্যঙ্গাত্মক প্রোপাগান্ডা ভিডিও প্রকাশ করেছে, যার বিরুদ্ধে বর্ণবাদেরও অভিযোগ উঠছে। ইংরেজিতে তৈরি করা ওই ভিডিও ক্লিপে অভিযোগ করা হয়েছে ভারত 'পাপ' করছে। ভিডিওতে একজন চীনা অভিনেতা পাগড়ি পরে ভারতীয়দের ইংরেজি বলার ভঙ্গীও নকল করেছেন।

 

চীনের সংবাদ সংস্থা শিনহুয়া এই ক্লিপটি প্রকাশ করেছে বুধবার - যাতে চীন ও ভারতের মধ্যে চলমান ডোকলাম সঙ্কট নিয়ে একটি চ্যাট শো বা আলোচনা-অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়েছে।কিন্তু এই ক্লিপটিকে ঘিরে ভারতে একই সঙ্গে বিস্ময়, বিভ্রান্তি আর তীব্র ক্ষোভ তৈরি হয়েছে।

 

ডিয়ের ওয়াং ওই ভিডিও ক্লিপে ভারতের বিরুদ্ধে তাদের অভিযোগগুলো তুলে ধরেছেন

 

কিন্তু এই ভিডিও ক্লিপে আছেটা কী?

'সেভেন সিনস অব ইন্ডিয়া' বা 'ভারতের সাতটি পাপ' শীর্ষক এই ভিডিওতে টেলি-তারকা ও অভিনেত্রী ডিয়ের ওয়াং ডোকলামকে ঘিরে ভারতের বিরুদ্ধে চীনের যে সব অভিযোগ - সেগুলোই তুলে ধরেছেন। 'দ্য স্পার্ক' নামে শিনহুয়া সম্প্রতি ইংরেজিতে যে অনলাইন চ্যাট শো সিরিজ শুরু করেছে, এটি তারই সাম্প্রতিকতম পর্ব।

 

বিস্ময় আর ক্ষোভ মেশানো গলায় তাকে সেখানে বলতে শোনা যাচ্ছে ভারত 'আন্তর্জাতিক সব আইন লঙ্ঘন করছে' এবং নিজেদের 'বেআইনি পদক্ষেপকে ঢাকতে নানা ধরনের অজুহাত তৈরি করছে'। তার এই স্বগতোক্তির মাঝে মাঝেই এসেছে একজন 'ভারতীয়'র সংলাপ - যেখানে একজন চীনা অভিনেতাকে পাগড়ি, সানগ্লাস আর বেমানান দাড়ি দিয়ে ভারতীয় সাজানো হয়েছে।

 

ভিডিওর মাধ্যমে হাসির উদ্রেক করতে ওই 'ভারতীয়'কে মাথা দুলিয়ে কথা বলতে দেখা যায়। সে ইংরেজিতে কথাও বলে টেনে টেনে, ভারতীয় অ্যাকসেন্ট ব্যবহার করে। ভিডিওর একটি দৃশ্যে সে একটি কাঁচি তুলে ধরে আর একজন অভিনেতার উদ্দেশে - যে আপাতদৃষ্টিতে চ্যাট শোতে ভুটানের প্রতিনিধিত্ব করছিল।

 

এর উদ্দেশ্যও ছিল স্পষ্ট - চীন যে মনে করে ভারত তাদের প্রতিবেশী, হিমালয়ের পার্বত্য দেশ ভুটানকে 'বুলি' করে বা ভয় দেখায় - সেটাই এর মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে।এই ভিডিওটি স্পষ্টতই বিদেশি শ্রোতা-দর্শকদের কথা মাথায় রেখে বানানো হয়েছে। কারণ এর পুরোটাই ছিল ইংরেজিতে - এবং এটি প্রকাশ করা হয়েছে শিনহুয়ার ইউটিউব, টুইটার ও ফেসবুক ফিডে, যার সবগুলোই চীনে নিষিদ্ধ।

 

চীনেও বিভিন্ন রিপোর্টে বলা হয়েছে, এই অনলাইন চ্যাট শো-র লক্ষ্যই হল প্রাসঙ্গিক নানা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে চীনের দৃষ্টিভঙ্গী তুলে ধরা এবং সেটার একটা আন্তর্জাতিক সংস্করণও রাখা।এই শো-র আগের পর্বগুলোতেও চীন-ভারত সম্পর্ক ও তাদের মধ্যে সংঘাতের বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও আমেরিকা-চীনের সম্পর্কও এই শো-তে আলোচিত হয়েছে। তবে তার সবগুলোই এই নতুন পর্বটির চেয়ে অনেক বেশি সংযত ও শালীন ভঙ্গীতে পরিবেশিত হয়েছিল।

 

 

ভারতীয়রা কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছে?

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে এই ভিডিওটির তীব্র সমালোচনা করে বলা হচ্ছে এটি অত্যন্ত রেসিস্ট বা বর্ণবাদী একটি পরিবেশনা।'দ্য হিন্দুস্তান টাইমস' পত্রিকা বলছে শিনহুয়া 'ভারতীয়দের বিদ্রূপ করে' এমন একটি রেসিস্ট ভিডিও রিলিজ করেছে - যেটিতে বিশেষ করে 'সংখ্যালঘু শিখ সম্প্রদায়কে আক্রমণের নিশানা করা হয়েছে'।

 

নিউজ পোর্টাল 'কুইন্ট' বলেছে ডোকলাম সঙ্কটকে কেন্দ্র করে চীনা সংবাদমাধ্যম যে আগ্রাসী ভাষায় কথাবার্তা বলছে এটি তারই আর একটি চেষ্টা।'ইন্ডিয়া টুডে'-র মতে ভারতকে ব্যঙ্গবিদ্রূপ করার চেষ্টায় চীন এখানে 'আরও এক ধাপ এগিয়ে গেছে'।

 

ভারতে সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই ভিডিওটি নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে।তবে এই ভিডিও ডোকলাম সঙ্কট নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে কিছু নতুন বিতর্কেরও জন্ম দিয়েছে।ডোকলামের বিতর্কিত অঞ্চলে আসলে কোন দেশের সার্বভৌমত্ব আছে, ফেসবুকে তা নিয়ে অনেকেই আবার নানা যুক্তি ও পাল্টা যুক্তি তুলে ধরছেন।

 

ভারত, ভুটান ও চীনের সীমানা যেখানে মিশেছে, সেই ডোকলামে গত দুমাসেরও বেশি সময় ধরে ভারত ও চীনের সেনারা মুখোমুখি অবস্থান নিয়ে রয়েছে।ডোকলাম উপত্যকায় চীন এমন একটি রাস্তা বানোনোর উদ্যোগ নিয়েছে, যেটি ভুটানের এলাকা বলে ভারত দাবি করছে।

 

আর তাকে ঘিরেই শুরু হয়েছে ভারত ও চীনের মধ্যে এই সামরিক উত্তেজনা - যা এখনও কমার কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

 

বিবিসি বাংলা 

 


Top