মিস্টার বাংলাদেশ হাসিব সোনা জয় করে বহিষ্কৃত হলেন | daily-sun.com

মিস্টার বাংলাদেশ হাসিব সোনা জয় করে বহিষ্কৃত হলেন

ডেইলি সান অনলাইন     ২০ মার্চ, ২০১৭ ০৪:৩১ টাprinter

মিস্টার বাংলাদেশ হাসিব সোনা জয় করে বহিষ্কৃত হলেন

 

 

আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় গিয়ে সোনা জয় কাল হয়ে দাঁড়াল বডি বিল্ডার এবং সাবেক মিস্টার বাংলাদেশ হাসিব মোঃ হালির। ২৩ বছর বয়সী এই সুদর্শন বডিবিল্ডার গত মধ্য জানুয়ারিতে সিঙ্গাপুরে ‘নাব্বা ওয়ার্ল্ড ফিটনেস ফেডারেশন এশিয়া মাসল ওয়ার’ বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে অনুর্ধ-২৪ জুনিয়র বিভাগে জিতে নেন স্বর্ণপদক। এই ধরনের টুর্নামেন্টে এর আগে কোন বাংলাদেশীই অংশ নেননি, কোন পদক পাওয়া তো দূরের কথা। তবে ফেডারেশনের উদ্যোগে সেখানে না যাওয়ায় হাসিবকে আজীবন বহিস্কার করা হলো!

 

শনিবার শরীর গঠন ফেডারেশন এক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে জানিয়েছে, "যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ, বাংলাদেশ শরীর গঠন ফেডারেশন এবং স্বীকৃত আন্তর্জাতিক শরীর গঠন কর্তৃপক্ষসহ ক্রীড়ার সব কর্তৃপক্ষের নিয়মনীতি ও আইন ভঙ্গ করে সিঙ্গাপুরের একটি ঘরোয়া শরীর গঠন প্রতিযোগিতায় (আইএফবিবি অনুমোদনহীন শরীর গঠন প্রতিযোগিতা) অংশগ্রহণ করা সেখান থেকে দেশে ফিরে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ফেডারেশনের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য প্রদান, ভবিষ্যতেও এ ধরনের অবৈধ কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার সংকল্প ব্যক্ত করাসহ অন্য বডিবিল্ডারদের এ ধরনের অবৈধ কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধ করার কারণে হাসিবকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে। "

 

অবশ্য গত ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝিতেই হাসিবকে একবার বহিষ্কারের এবং মানহানির মামলা করার উদ্যোগ নিয়েছিল ফেডারেশন। একটা সভায় ঢাকা ও চট্টগ্রামের সব কাউন্সিলর এবং সব জিম ক্লাবের প্রতিনিধিদের সে সভায় ডাকা হলেও অধিকাংশই উপস্থিত ছিলেন না। তাই হাসিবকে সেবার বহিষ্কার করা সম্ভব হয়নি। তবে এবার তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়নি।

 

বহিস্কারাদেশ প্রসঙ্গে হাসিব বলেন, "আগেই জানতাম ফেডারেশন আমাকে নিষিদ্ধ করবে। এখন সেটাই হলো। এজন্য আগেই মানসিকভাবে প্রস্তত ছিলাম। আমি এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করব। তবে ফেডারেশনের কাছে নয়, এনএসসির কাছে। আরেকটা কাজ করব এবং সেটা আগামী সাতদিনের মধ্যে। তা হলো, ফেডারেশনের বিরুদ্ধে পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে নাব্বা ওয়ার্ল্ড ফিটনেস ফেডারেশন বাংলাদেশ সংস্থা চালু করব। এই ফেডারেশনের অধীনে যেসব টুর্নামেন্ট হয় সেগুলো আন্তর্জাতিক শরীর গঠন ফেডারেশন অনুমোদন দেয় না। ইতোমধ্যেই ২০টি ক্লাব রাজি হয়েছে। পরে সংখ্যাটা আরও বাড়বে। "

 

ফেডারেশনের অনুমতি না নেওয়ার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, "২০১৬ সালের মে মাসে চীনে যাই আইএফবিবি মিস্টার এশিয়াতে অংশ নিতে। ফেডারেশনের কাছে অনুমোদন নেয়ার সময় তারা শর্ত দেন, আমাকে নিজ খরচে চীনে যেতে হবে। কোনো পদক জিতলে তার পুরো কৃতিত্ব তাদের দিতে হবে। তারা মিডিয়াতে প্রচার করবেন তারাই আমাকে চীনে যাওয়ার খরচ দিয়েছেন, আমাকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন ইত্যাদি। তাদের এমন হীনমানসিকতা ও হয়রানিতে হতাশ হই। এ জন্যই সিঙ্গাপুরে যাওয়ার আগে তাদের জানাইনি। "

 


Top