এরশাদের নেতৃত্বে ১০ দলীয় জোট এ মাসেই | daily-sun.com

এরশাদের নেতৃত্বে ১০ দলীয় জোট এ মাসেই

ডেইলি সান অনলাইন     ৫ মার্চ, ২০১৭ ১০:৩১ টাprinter

এরশাদের নেতৃত্বে ১০ দলীয় জোট এ মাসেই

 

নয়া রাজনৈতিক জোট গঠনের কাজে অনেক দূর এগিয়ে গেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। প্রাথমিকভাবে ১০টি রাজনৈতিক দল নিয়ে আলাদা একটি জোট গঠন করতে যাচ্ছেন তিনি।

দলগুলো হচ্ছে- লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি, বাংলাদেশ লেবার পার্টি, জাতীয় জনতা পার্টি, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি, গণফ্রন্ট, মুসলিম লীগ, আমজনতা পার্টি, হিন্দু লীগ, গণতান্ত্রিক ন্যাপ এবং বাংলাদেশ আওয়ামী পার্টি। সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।


সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে এসব দলের শীর্ষ নেতারা জাতীয় পার্টির সঙ্গে জোটে থাকতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এরশাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বেশ কয়েক দফা। এতদিন অনানুষ্ঠানিকভাবে বৈঠক হলেও এবার বিষয়টি খোলাসা করা হবে। এর অংশ হিসেবে ৭ মার্চ মঙ্গলবার দলগুলোর শীর্ষ নেতারা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করবেন। বনানীর কার্যালয়ে বেলা ১১টায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এ মাসের শেষ দিকেই জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে আত্মপ্রকাশ করবে নতুন একটি জোট।


জানতে চাইলে এ বিষয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ শনিবার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল অনেক দিন ধরে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে।

অনেকে আমার সঙ্গে নানা দফায় বৈঠক করেছেন। এদের মধ্যে বেশ কয়েকটি নিবন্ধিত দল রয়েছে। কিছু দলের নিবন্ধন নেই। কিন্তু তাদের সমাজে পরিচিতি আছে। এরা সবাই জাতীয় পার্টিকে সামনে রেখে একটি নতুন জোট গঠনের প্রয়োজনীয়তার কথা বলে আসছেন। আমরাও নানাদিক বিবেচনায় নিয়ে জোট গঠনের বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ’


সাবেক এ রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, ‘এটি হবে মূলত একটি নির্বাচনী জোট। শরিক দলগুলোর মধ্যে ভালো প্রার্থী থাকলে এবং সেই প্রার্থী জয়ী হয়ে আসার সম্ভাবনা তৈরি হলে আমরা তাদের আসনে ছাড় দেব। ’ তিনি জানান, ‘এ জোট হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী রাজনৈতিক দলগুলো নিয়ে। ’


এ প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি বলেন, ‘বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতা দলের চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। সবাই জাতীয় পার্টিকে সামনে রেখে তারা একটা জোট গঠনের আগ্রহ প্রকাশ করেন। আমরাও ভেবে দেখলাম আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ১৪ দলীয় জোট আছে। বিএনপির নেতৃত্বে আছে ২০ দলীয় জোট। জাতীয় পার্টিও দেশের একটি বড় রাজনৈতিক দল। সে ক্ষেত্রে কেউ যদি আমাদের সঙ্গে জোটবদ্ধ হতে চায়, তবে তাদের আমরা সঙ্গে নিয়ে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি জোট গঠন করতেই পারি। ’ 


তিনি আরও বলেন, ‘এসব ভাবনা থেকেই আমাদের পার্টি চেয়ারম্যান জোট গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাই সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এ মাসের শেষদিকে জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে নতুন জোটের আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটবে। ’

জানা গেছে, মূলত আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নতুন জোট গড়ার এ উদ্যোগ নিয়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী কমপক্ষে এক ডজন রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে সম্ভাব্য এ জোট গঠনের প্রস্তুতি চলছে। জোট গঠন প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিতে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পার্টি চেয়ারম্যানের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায়কে প্রধান সমন্বয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে তাকে সহযোগিতা করছেন সম্প্রতি বিএনপি ছেড়ে জাতীয় পার্টিতে যোগদান করা খুলনার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এসএম মুশফিকুর রহমান।
সূত্র জানায়, আরও কয়েকটি রাজনৈতিক দলের নেতারা তার সঙ্গে বৈঠকে বসার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।


জানতে চাইলে এ প্রসঙ্গে সুনীল শুভরায় বলেন, ‘প্রথমিকভাবে ১০টি রাজনৈতিক দলের নেতারা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এ জোট গঠনে আরও অনেকেই তাদের আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। আমরা আলাপ-আলোচনা অব্যাহত রেখেছি। তাই জোটের আনুষ্ঠানিক যাত্রার আগে শরিক দলগুলোর সংখ্যা আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ’


জানা গেছে, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের কয়েকটি শরিক দলও ভেতরে ভেতরে জাতীয় পার্টির সঙ্গে জোট গঠনে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। দলগুলোর শীর্ষ নেতারা ইতিমধ্যে এ ইস্যুতে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। তারা কেন বিএনপি জোটে থাকতে চান না সে বিষয়ে তাদের বেশ কিছু যুক্তিও তুলে ধরেন। এছাড়াও আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির বাইরে থাকা আরও বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতারা জাতীয় পার্টির সঙ্গে জোটে থাকার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এর বাইরে কয়েকটি ইসলামী ঘরানার ধর্মভিত্তিক দলের সঙ্গেও এ ইস্যুতে পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে।

-সূত্র: যুগান্তর

 


Top