থানায় ঝুলিয়ে যুবককে নির্যাতন: এসআই ও এএসআইকে তলব | daily-sun.com

থানায় ঝুলিয়ে যুবককে নির্যাতন: এসআই ও এএসআইকে তলব

ডেইলি সান অনলাইন     ৮ জানুয়ারী, ২০১৭ ১৫:২০ টাprinter

থানায় ঝুলিয়ে যুবককে নির্যাতন: এসআই ও এএসআইকে তলব

 

যশোর কোতোয়ালি থানার ভেতরে আবু সাঈদ নামের এক যুবককে হাতকড়া পরিয়ে ঝুলিয়ে নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে ব্যাখ্যা জানাতে পুলিশের কোতোয়ালি থানার এসআই নাজমুল ও এএসআই হাদিবুর রহমানকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ২৫ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১০টায় তাঁদের হাজির হতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি নির্যাতনের শিকার অভিযোগ ওঠা আবু সাঈদকে ওই দিন উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।


গত ৬ জানুয়ারি ‘ঘুষ না পেয়ে থানায় যুবককে ঝুলিয়ে পেটাল পুলিশ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। এটি নজরে এলে আজ রবিবার বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুলসহ এ আদেশ দেন। পাশাপাশি ওই ঘটনা তদন্ত করে ৩০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে যশোর পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 


এ ছাড়া ওই ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, তা রুলে জানতে চাওয়া হয়। দুই সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি, যশোরের পুলিশ সুপার, কোতোয়ালি থানার ওসিসহ সংশ্লিষ্টদের জবাব দিতে বলা হয়েছে।


রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।


নির্যাতনের শিকার আবু সাঈদ (৩০) যশোর সদর উপজেলার তালবাড়িয়া গ্রামের নুরুল হকের ছেলে। তাঁর স্বজন জানান, সাঈদকে ছাড়াতে দুই লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেছিল পুলিশ। শেষমেশ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে তাঁকে ছাড়িয়ে আনা হয়েছে।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যশোরের কোতোয়ালি মডেল থানার এক পুলিশ সদস্য ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছিলেন, ৪ জানুয়ারি রাতে সাঈদকে আটক করেন থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নাজমুল। পরে তাঁর কাছে তিনি ও সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হাদিবুর রহমান দুই লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু তা দিতে অস্বীকার করায় সাঈদকে হাতকড়া পরিয়ে থানার মধ্যে দুই টেবিলের মাঝে ঝুলিয়ে পেটানো হয়। খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ওই রাতেই সাঈদকে ছাড়িয়ে আনেন।

 


Top