রিও অলিম্পিকের আলো ঝলমলে উদ্বোধন | daily-sun.com

রিও অলিম্পিকের আলো ঝলমলে উদ্বোধন

ডেইলি সান অনলাইন     ৬ আগস্ট, ২০১৬ ০৯:৫১ টাprinter

রিও অলিম্পিকের আলো ঝলমলে উদ্বোধন

আলোর ঝলকানি। পরাবাস্তবতার ছোঁয়া চারদিকে। রংয়ে রংয়ে ঢেকে যায় চারদিক। সাম্বা ছন্দে উন্মাতাল পরিবেশ। সারা বিশ্বের হাজারো সেরা অ্যাথলেটদের পদচারণায় উৎসব আর উৎসব। ব্রাজিলের ইতিহাস, ঐতিহ্যের অনুপম প্রদর্শনী। এ যেন অন্য কোনো জগত। রিওর অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান মারাকানা স্টেডিয়ামের সবাইকে, সাথে টেলিভিশনের পর্দায় চোখ রাখা শত কোটি মানুষকে নিয়ে গেল ভিন্ন কোনো জগতে। সেই জগতে ঘুরতে ঘুরতেই সবাই দেখল ৩১তম অলিম্পিক গেমস 
'দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ' এর জমকালো উদ্বোধন। যে আয়োজন ছাড়িয়ে গেল আগের সব আয়োজনকে।

শনিবার বাংলাদেশ সময় সকালে রাতের দরজায় পা রাখে রিও। এবারের অলিম্পিক নগরী। ঐতিহাসিক মারাকানা স্টেডিয়াম মানুষে টইটুম্বুর। গোটা বিশ্বের অ্যাথলেটদের উপস্থিতিতে প্রাণময়, দারুণ। প্রায় ৫০ হাজার দর্শক। তাদের সামনে আধুনিক প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে অনন্য পারফরমেন্স ব্রাজিলের শিল্পীদের। যেখানে উঠে আসে বিশ্ব ইতিহাস। উঠে আসে ব্রাজিলের সংস্কৃতি ও তাদের ইতিহাসের বিবর্তন। ইমেজ, স্পেশাল ইফেক্ট, নাচ, গান, মোবাইলের আলোর ঝলকানি, সুপারমডেল গিসেলে বান্দশেন অনুষ্ঠানিক ব্রাজিলের জাতীয় সংগীতের সাথে আলো ছড়ান। গোটা অনুষ্ঠানে দম ফেলার ফুরসত পান না দর্শকরা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বড় আকর্ষণ থাকে অলিম্পিক মশাল প্রজ্বলন ও সারা বিশ্বের ক্রীড়াবিদদের মার্চ পাস্ট বা প্যারেড। প্রত্যেক দেশের পতাকা নিয়ে তাদের দল হেঁটে যায় আনন্দযজ্ঞে। ব্রাজিলের ফুটবল কিংবদন্তি পেলে পারেননি মশাল জ্বালতে। দেশটির ম্যারাথন দৌড়বিদ ভান্দারলেই দে লিমা মশাল জ্বালার গৌরব পেলেন। বাংলাদেশের পতাকা হাতে গর্বের সাথে হেঁটে গেলেন গলফার সিদ্দিকুর রহমান। তার সাথে লাল-সবুজের সাতজনের অলিম্পিক দল। আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয়ে গেল ২০১৬ রিও অলিম্পিক গেমস। ১৭ দিনের আসরের সমাপ্তি ২১ আগস্ট।


Top