মানসিক চাপ মস্তিষ্ককে আরো শক্তিশালী করে! | daily-sun.com

মানসিক চাপ মস্তিষ্ককে আরো শক্তিশালী করে!

ডেইলি সান অনলাইন     ২ জানুয়ারী, ২০১৭ ১৬:০১ টাprinter

মানসিক চাপ মস্তিষ্ককে আরো শক্তিশালী করে!

 

দৈনন্দিন জীবনের নানা ঝুট-ঝামেলায় সৃষ্ট মানসিক চাপ সব সময়ই নেতিবাচক হয় না। এমনটাই মত, বিশ্বের নেতৃস্থানীয় স্নায়ুবিজ্ঞানী অধ্যাপক আয়ান রবার্টসনের। দ্য স্ট্রেস টেস্ট নামের বইতে তিনি লিখেছেন, জীবনের চাপ এমনকি আমাদেরকে মানসিকভাবে আরো বিকশিত হতেও সহায়তা করতে পারে। মানসিক চাপ আমাদেরকে অনেক সময় অনুপ্রেরণা যোগানো এবং মস্তিষ্ককে আরো শক্তিশালীও করে তুলতে পারে।

 

ম্যানচেস্টার মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির পিটার ক্লফ নামে মনোবিজ্ঞানের এক অধ্যাপকও এ ব্যাপারে একমত পোষণ করেছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি জার্মান দার্শনিক ফ্রেডরিক নিটশের একটি উক্তির উল্লেখ করেন- 'যা আমাদেরকে একেবারে মেরে ফেলে না তা আমাদেরকে আরো শক্তিশালী করে গড়ে তোলে। '

 

দ্য স্ট্রেস টেস্ট বইয়ে অধ্যাপক রবার্টসন, আমাদের মস্তিষ্ক ছোটবেলা থেকেই 'হার্ড ওয়্যার' করা থাকে এই ধারণাটি নাকচ করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, 'আমাদের চিন্তা ও আবেগগত অভিজ্ঞতা আমাদের দেহের বিভিন্ন জিনগত রুপান্তর ঘটিয়ে আমাদের মস্তিষ্ককে প্রতিনিয়ত পুনর্নির্মাণ করে চলেছে। আর তা ছাড়া আমাদের মস্তিষ্ক স্বনিয়ন্ত্রিতভাবে প্রোগ্রাম সেট করতে পারে। এ ছাড়া আমরা শুধু মস্তিষ্কের কর্মকাণ্ডই পরিবর্তন করতে পারি না বরং মস্তিষ্কের কর্মকাণ্ডের রসায়ন এবং কাঠামোও বদলে দিতে সক্ষম। '

 

আমাদের মস্তিষ্কের ভেতরে দুটি প্রতিযোগিতামূলক মেকানিজম আছে। আমাদের মস্তিষ্কের সামনের বাম পাশের অংশটুকু আমাদেরকে প্রতিদান পেতে উৎসাহিত করনে এবং উদ্বেগ মোকাবিলাকারী ডোপামিন নিঃসরণে সহায়তা করে। আর আমাদের মস্তিষ্কের সামনের ডান পাশের অংশটুকু শাস্তি এড়ানো ও নর‌অ্যাড্রেনালিন নিঃসরণে কাজ করে। যা মূলত 'মারামারি বা উড়ানের' প্রতি প্রতিক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত।

 

এই দুই পাশের কর্মকাণ্ডের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে পারলে রসায়নের এমন একটি যথাযথ ককটেল তৈরি হয় যা মানসিক চাপকে মস্তিষ্কের জন্য ক্ষতিকর নয় বরং মস্তিষ্ককে আরো শক্তিশালী করার উপাদানে রুপান্তরিত করে। আর যারা নিজেদের আবেগগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তারা মস্তিষ্ককে শক্তিশালী করার এ সুবিধা সবচেয়ে বেশি সহজে কাজে লাগাতে পারেন।

 


Top