logo
Update : 2018-07-12 19:39:28
বিএফইউজের নির্বাচন কাল

বিএফইউজের নির্বাচন কাল

  বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) নির্বাচন উপলক্ষে সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার (১৩ জুলাই) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে। এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তোপখানা রোডস্থ জাতীয় প্রেস ক্লাব এবং এর আশপাশে প্রার্থীরা ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড লাগিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। সব মিলিয়ে বিএফইউজের এ নির্বাচনে প্রচার প্রচারণা তুঙ্গে। এ নির্বাচনে মোট চার হাজার ১৪১ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনের জন্য জাতীয় প্রেস ক্লাবের মিলনায়তনে মঞ্চ এবং ভোটের বুথ নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। প্রেস ক্লাব চত্ত্বরে নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল প্যান্ডেল। এবারের নির্বাচনে ফারুক-শাবান-দীপ পরিষদে সভাপতি পদে ওমর ফারুক, সহ সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা ও মহাসচিব পদে শাবান মাহমুদ, যুগ্ম-মহাসচিব রফিকুল ইসলাম সবুজ, কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদ এবং দফতর সম্পাদক পদে হেমায়েত হোসেন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ছাড়া নির্বাহী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- স্বপন দাস গুপ্ত, মফিদা আকবর, শফিউদ্দিন আহমেদ বিটু ও নুরে জান্নাত সীমা।   জলিল-কাজল-মধু পরিষদে সভাপতি পদে আবদুল জলিল ভুঁইয়া, সহ সভাপতি ড. উৎপল কুমার সরকার ও মহাসচিব পদে জাকারিয়া কাজল, যুগ্ম-মহাসচিব নাসিমা আক্তার সোমা, কোষাধ্যক্ষ মধুসুদন মণ্ডল এবং দফতর সম্পাদক পদে বরুণ ভৌমিক নয়ন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ছাড়া এ পরিষদে নির্বাহী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, জহুরুল ইসলাম টুকু, খায়রুজ্জামান কামাল, শেখ মামুনূর রশিদ ও আখতার জাহান মালিক। পরিষদের বাইরে সভাপতি পদে স্বতস্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোল্লা জালাল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কোষাধ্যক্ষ পদে নজরুল কবির প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন। যুগ্ম-সম্পাদক পদে স্বতন্ত্রভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আবদুল মজিদ, খায়রুল আলম, দীপংকর গৌতম, ফজলুল হক বাবু ও মানিক লাল ঘোষ। দফতর সম্পাদক পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী লড়ছেন রেজাউল করিম রেজা। পরিষদের বাইরে সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকরীরা হলেন- সেবিকা রানী, মীর আফরোজ জামান, আবদুল খালেক লাভলু, শামসুর রহমান ও আখতার জাহান মালিক। ঢাকা ছাড়াও চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, যশোর, ময়মনসিংহ, নারায়নগঞ্জ, কক্সবাজার, কুষ্টিয়া ও বগুড়ার ভোটাররাও তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। উল্লেখ্য, গত ৬ জুলাই এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আগের দিন বৃহস্পতিবার (৫ জুলাই) শ্রম আদালতে নির্বাচনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী খায়রুল আলম ও নির্বাহী কমিটির সদস্য সেবিকা রাণীর করা মামলার প্রেক্ষিতে ঢাকার প্রথম শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান ড. শাজাহান এ নির্বাচন স্থগিতের আদেশ দিয়েছিলেন।   মামলায় বাদী পক্ষ অভিযোগ করেন- ভোটার তালিকা থেকে ২৬ জনকে বাদ দেয়া হয়েছে, যা শ্রম আইনের লঙ্ঘন। অপরদিকে ২০০ জনকে সদস্যপদ দেয়া থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে তারা একটি অভিযোগ করেছেন, যা এখনও মীমাংসা হয়নি। এ কারণেই তারা নির্বাচন স্থগিত চেয়ে আবেদন করেন। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত নির্বাচন স্থগিত করে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন। পরে নির্বাচন স্থগিতের আদেশ প্রত্যাহার চেয়ে শ্রম আদালতে আবেদন করেন বিএফইউজে'র সভাপতি পদপ্রার্থী মোল্লা জালাল। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে সোমবার (৯ জুলাই) ঢাকার প্রথম শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান ড. শাজাহানের আদালত এ আদেশ প্রত্যাহার করেন। আদালতের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হওয়ায় গত ১০ জুলাই বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) নির্বাচনের নতুন এ তারিখ ঘোষণা করে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি।