logo
Update : 2017-12-23 19:14:16
দু’দলের কেউ আমাদের বন্ধু নয়: এরশাদ

দু’দলের কেউ আমাদের বন্ধু নয়: এরশাদ

  আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে ইঙ্গিত করে জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, দু’দলের কেউ আমাদের বন্ধু নয়, জনগণই আমাদের বন্ধু। তিনি বলেন, সত্যিকার অর্থে জাতীয় পার্টি সুবিচার কোথাও পায়নি। তারপরও জাতীয় পার্টি টিকে আছে, আমিও বেঁছে আছি। শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে দলের বনানী কার্যালয়ে পিরোজপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজির জাতীয় পার্টিতে যোগদান অনুষ্ঠানে এরশাদ এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘আমি বেঁচে আছি সকলের দোয়ায়। আমাকে ফাঁসিতে ঝুলানোর চক্রান্ত করা হয়েছিল।’    ডা. রুস্তুম আলী ফরাজীর যোগদান প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, ‘হারানো বন্ধুকে ফিরে পেলাম। অনেকে ফিরে এসেছেন। সবচেয়ে বেশি আমার দল নির্যাতিত হয়েছে। জাতীয় পার্টিকে নির্বাচন করতে দেয়া হয়নি। আমাকে জেলে পাঠিয়েছিল।’ তিনি বলেন, ‘বিনা দোষে ছয় বছর জেলে খেটেছি। বিশ্বের ইতিহাসে বিরল ঘটনা। আমি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলাম। আমি বেঁচে আছি সকলের দোয়ায়। আমাকে ফাঁসিতে ঝুলানোর চক্রান্ত করা হয়েছিল। আমার স্ত্রী, পুত্র, নেতাকর্মীকে বিনা অপরাধে নির্যাতন করে জেলে নেয়া হয়েছিল।’ এরশাদ বলেন, নির্বাচনে আমাকে কোনো প্রচার করতে দেয়া হয়নি। কোনো মিছিল-মিটিং করতে দেয়া হয়নি। ১৪৫টি মিটিং আমাদেরকে করতে দেয়া হয়নি। তারপরও জেলে থেকে নির্বাচন করে ৩৫টি আসনে জয়লাভ করেছিলাম। তিনি বলেন, হাইকোর্টের আদেশ ছিল সংসদে যেতে দিতে। কিন্তু আমাকে সংসদে যেতে দেয়া হয়নি। জাতীয় পার্টিকে নিচ্ছিন্ন করে দেয়ার পরিকল্পনা করেছিল। মিলন ও নূর হোসেন হত্যার বিষয়ে এরশাদ বলেন, নূর হোসেনকে পেছন থেকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল। আন্দোলনের জন্য তাদের লাশের প্রয়োজন ছিল, তাই তারা নূর হোসেনকে হত্যা করেছে। গুম, খুন ও দুর্নীতির হাত থেকে রক্ষা পেতে মানুষ সরকারের পরিবর্তন চায়। রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তা প্রমাণিত হয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, সরকারের অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে ভবিষ্যতের সব নির্বাচন রংপুরের মতোই হবে বলে আমার বিশ্বাস।  তিনি বলেন, জনগণের জানমালের নিরাপত্তার দায়িত্ব সরকারের। কিন্তু ক্ষমতায় টিকে থাকার চিন্তায় সরকার তার দায়িত্ব পালনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।   এরশাদ আরও বলেন, জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় এলে জনগণের জানমালের দায়িত্ব নেবে।  অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, বিরোধীদলীয় চিপ হুইফ তাজুল ইসলাম চৌধুরী, মো. শফিকুল ইসলাম সেন্টু প্রমুখ।